দেবহাটায় সরকারি খাল পুনরুদ্ধারে নেমে যুবকের কারাভোগ!

স্টাফ রিপোর্টার:

সাতক্ষীরার দেবহাটায় যুগ যুগ ধরে প্রবহমান একটি সরকারি খাল পুনরায় সরকারের অনুকূলে পুনরুদ্ধারের প্রচেষ্টায় নেমে জবর দখলকারীর দায়েরকৃত ষড়যন্ত্র মুলোক মামলায় গ্রেপ্তার হয়েছেন রুহুল আমিন সরদার (৪২) নামের এক যুবক।

তিনি উপজেলার ঘলঘলিয়া রহিমপুর গ্রামের মৃত আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে। বুধবার (২৫ জানুয়ারি) ভোররাতে নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করেন দেবহাটা থানার সাব ইন্সপেক্টর হাফিজুর রহমান।

এর আগে সরকারি ওই খাল নিয়ে চলমান দ্বন্দের জেরে সংঘটিত গোলযোগকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার রাতে জবর দখলকারী একই গ্রামের মৃত দাউদ গাজীর ছেলে রুহুল আমিন গাজী প্রতিশোধ পরায়ন হয়ে তার স্ত্রীকে মারপিটের অভিযোগে খাল পুনরুদ্ধারের প্রচেষ্টাকারি রুহুল আমিন সরদারকে আসামী করে দেবহাটা থানায় ১০(১)২৩ নং মামলাটি দায়ের করেন।

এদিকে, সরকারি খাল জবরদখল বা পুনরুদ্ধার নিয়ে দুপক্ষের মধ্যে চলমান গোলযোগ পুলিশের জানা নেই, কেবলমাত্র মারপিটের মামলায় রুহুল আমিন সরদারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন দেবহাটা থানার ওসি শেখ ওবায়দুল্যাহ।

ঘলঘলিয়ার এ.কে মনিরুজ্জামান, শাহাবুদ্দীন, নজরুল ইসলাম সহ স্থানীয়রা জানান, আশপাশের অন্তত পাঁচটি গ্রামের মধ্যে দিয়ে সরকারের ১নং খতিয়ানের জমিতে প্রবহমান একটি সরকারি খাল ১৯৭৮ সালে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে পনের বছরের জন্য বন্দোবস্ত নেন মৃত আলী গাজীর ছেলে দাউদ গাজী।

এসএ রেকর্ডে ওই খালের ১.৫০ একর জমিই খাল শ্রেনীভুক্ত, যা গোটা এলাকার পানি নিষ্কাশনের একমাত্র পথ। বন্দোবস্ত নিয়ে সময়ে এলাকার পানি নিষ্কাশনের পথ বন্ধ করে তাতে মাছ চাষ শুরু করেন দাউদ গাজী।

৩২ বছর আগে বন্দোবস্তের মেয়াদ শেষ হলেও খালটি জবরদখল করে রেখেছিলেন দাউদ গাজীর পরিবার। কয়েক বছর আগে দাউদ গাজী মারা গেলে তার ছেলে রুহুল আমিন সরদার জবরদখলকৃত সরকারি খালের জমি কিছুটা ভরাট করে তাতে বাড়ি তৈরী করেন। এতে করে এলাকার পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা পুরোপুরি বন্ধ হওয়ায় বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধতায় নাজেহাল হয়ে আসছিলেন আশপাশের পাঁচ গ্রামের বাসিন্দারা।

একপর্যায়ে জনদূর্ভোগ থেকে বাঁচতে দাউদ গাজীর মেয়াদোত্তীর্ণ বন্দোবস্তের দলিল বাতিল করে সরকারি খালটি পুনরায় সরকারের অনুকূলে ফিরিয়ে নিতে একজোট হন ভুক্তভোগীরা। এনিয়ে গ্রেপ্তারকৃত রুহুল আমিনসহ গ্রামের চার শতাধিক বাসিন্দা গণস্বাক্ষর করে জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, সহকারী কমিশনার (ভূমি) সহ সরকারের সংশ্লিস্ট বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত আবেদন করেন।

এমনকি সরকারের পক্ষে সাতক্ষীরার বিজ্ঞ আদালতে গ্রামবাসিরা একটি মামলাও দায়ের করেন। যার প্রেক্ষিতে ইতোমধ্যেই ওই সরকারি খালটি পুনরায় সরকারের অনুকূলে ফিরিয়ে নিতে পদক্ষেপ নিয়েছে ভূমি প্রশাসন। এতে করে বন্দোবস্ত বাতিল প্রক্রিয়ার উদ্যোক্তা রুহুল আমিন সরদার সহ অন্যান্য এলাকাবাসির ওপর ক্ষিপ্ত ছিলেন জবরদখলকারী দাউদ গাজীর ছেলে রুহুল আমিন গাজী।

এলাকাবাসি আরও জানায়, শুক্রবার দুপুরে (২০ জানুয়ারি) রুহুল আমিন সরদার ওই খালের পাশ^বর্তী তার মাছের ঘেরের ভেড়িতে বেড়া দিতে গেলে সুযোগ বুঝে তার সাথে বিবাদে জড়ায় জবরদখলকারী রুহুল আমিন গাজীর স্ত্রী শাহানারা বেগম। গোলযোগের একপর্যায়ে পরিকল্পিত ভাবে স্ত্রীর সাথে মিলিত হয়ে রুহুল আমিন সরদারের ওপর হামলা করেন খালের জবর দখলকারি রুহুল আমিন গাজী। এতে দুপক্ষের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।

পরে প্রতিশোধ পরায়ন রুহুল আমিন গাজী নাটকীয়ভাবে তার স্ত্রীকে হাসপাতালে ভর্তি করে ঘটনার চার দিন পর মারপিটের অভিযোগে রুহুল আমিন সরদারের বিরুদ্ধে দেবহাটা থানায় ষড়যন্ত্র মুলোক মামলাটি দায়ের করলে বুধবার ভোররাতে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে প্রেরণ করেন। এঘটনায় ক্ষুব্ধ পাঁচ গ্রামের বাসিন্দারা রুহুল আমিন সরদারের মুক্তি ও ষড়যন্ত্র মুলোক মামলাটি প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন।

Please follow and like us:
Tweet 20

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
error

Enjoy this blog? Please spread the word :)