আশাশুনিতে অশোক বিশ্বাসের বাড়িতে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনায় মামলা নেয়নি পুলিশ

উল্টে টিসিবি পণ্য পাচারকালে গণধোলাইয়ের শিকার উদয় মেম্বরের ছেলের মিথ্যা মামলায় আসামী হলেন অশোকসহ ৯জন

রঘুনাথ খাঁ, সাতক্ষীরা :

টিসিবির বিপুল পরিমান পণ্য পাচারকালে গণধোলাইয়ের ঘটনায় সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার শোভনালি ইউপি সদস্য উদয় কান্তি বাছাড়ের নির্বাচনী প্রতিপক্ষ অশোক বিশ্বাসসহ নয় জনের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়েরের অভিযোগ উঠেছে। সোমবার উদয় বাছাড়ের ছেলে উৎসব নারায়ন বাছাড় বাদি হয়ে আশাশুনি থানায় এ মামলা দায়ের করেন।

অভিযোগ, গত ২৬ অক্টোবর রাত সাড়ে ১১টার দিকে উদয় কান্তি বাছাড়, তার ছোট ভাই সুদয় বাছাড়, তার দুই ছেলে উৎসব বাছাড়, উৎসর্গ বাছাড়, অনুপ সরকারসহ কয়েকজন নির্বাচনী প্রতিপক্ষ অশোক বিশ্বাসের বাড়িতে ভাঙচুর ও লুটপাট চালান। পরদিন পুলিশ ওই মামলা না নিয়ে উল্টে টিসিবি পণ্য পাচারকালে গণধোলাইয়ের ঘটনা ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলায় অশোক বিশ্বাস, তার ছেলে জয়দ্বীপ বিশ্বাসসহ নয়জনকে আসামী করা হয়েছে।

শোভনালী ইউপি সদস্য আবু হাসান, কামালকাটি গ্রামের হাফিজুল সরদার ও মফিজুলসরদারসহ কয়েকজন জানান, টিসিবি পণ্যের কার্ডধারী কয়েকজনের মালামাল নিজের জিম্মায় নিয়ে তাদেরকে বন্টনের নামে মজুত করে রবিবার রাতে ও সোমবার ভোরে পাচারকালে কামালকাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে মোটর সাইকেল বালিতে আটকে যাওয়ায় গণধোলাইয়ের শিকার হন শোভনালী ইউপি’র পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি, স্থানীয় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শোভানালী ইউপি সদস্য উদয় কান্তি বাছাড়। পুলিশ আসতে দেরী করায় ভাই সুদয় ও দুই ছেলেসহ কয়েকজন উদয়কে আশাশুনি হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়ার কথা বলে নিয়ে যায়। পরে পুলিশের উপস্থিতিতে উদয় বাছাড়ের মজুতকৃত টিসিবি’র বিপুল পরিমান সোয়াবিন তেল, চিনি ও মুসুর ডাল জব্দ করা হয়।

এ ঘটনায় উদয় বাছাড়ের বিরুদ্ধে কোন মামলা না হলেও তার ছেলে উৎসব নারায়ন বাছাড় অশোক বিশ্বাস, তার ছেলে জয়দ্বীপ বিশ্বাসসহ নয়জনের নাম উলে­খ করে সোমবার থানায় মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে।

কামালকাটি গ্রামের অশোক বিশ্বাস জানান, গত ২৬ অক্টোবর রাতে তার বাড়ির পাশে শ্যামাকালি পুজা চলছিল। শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখার কাজে ইউনিয়ন পরিষদের ১০ জন গ্রাম পুলিশ ও বিট অফিসার উপপরিদর্শক মারুফ হোসেন দায়িত্ব পালন করছিলেন। পুলিশের অলিখিত সহায়তায় ওই মণ্ডপে জুয়ার বোর্ড চালানোর কথা ছিল। বিষয়টি নিয়ে পুলিশের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করায় সন্ধ্যার পর উপপরিদর্শক মারুফ হোসেন শুরুর আগেই জুয়ার বোর্ড না বসানোর জন্য পুজা পরিচালনা কমিটির সভাপতি প্রদীপ কুমার বাছাড়কে সতর্ক করেন।

জুয়া খেলা তিনিই(অশোক) বন্ধ করিয়েছেন এমন অভিযোগ এনে রাত সাড়ে ১১টার দিকে মন্দিরে অনুষ্ঠান চলাকালিন ১০জন গ্রাম পুলিশ ও উপপরিদর্শক মারুফ হোসেনসহ হাজারো দর্শণার্থীদের উপস্থিতিতে তার বাড়িতে হামলা চালায় উদয় বাছাড় ও তার ছোট ভাই সুদয়, দুই ছেলে ও অনুপ সরকারসহ কয়েকজন। তিনি বাড়িতে না থাকায় জীবননাশের হুমকি দিয়ে পরিবারের সদস্যদের দরজা খুলতে বাধ্য করে হামলাকারিরা।

একপর্যায়ে তাদেরকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে আলমারি ভাঙচুর করে নগদ ৫০ হাজার টাকা, দুই মেয়ে ও এক পুত্রবধুর ব্যবহৃত তিনটি সোনার চেইনসহ বিভিন্ন জিনিসপত্র লুটপাট করা হয়। পরিবারের সদস্যদের আত্মচিৎকারে পুজা মণ্ডপে থাকা লোকজন ছুঁটে এলে তিনটি বাঁশের লাঠি ও একটি রাম দা ফেলে পালিয়ে যায় হামলাককারিরা। রাতেই ওই তিনটি বাঁশের লাঠি ও রাম দা থানায় সোপর্দ করা হয়। ২৭ অক্টোবর তিনি বাদি হয়ে থানায় এজাহার দিলেও অজ্ঞাত কারণে মামলা নেয়নি পুলিশ।

অশোক বিশ্বাস অভিযোগ করে বলেন, জুয়া বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে তার বাড়িতে হামলা ও লুটপাটের ঘটনার সত্যতা থাকার পরও মামলা না নিয়ে পাল্টা গণধোলাইয়ের শিকার উদয় বাছাড়ের ছেলের দেওয়া মিথ্যা মামলায় তাকে, তার ছেলেসহ নয়জনকে আসামী করা হয়েছে। বুধবার মামলার ছয়জন আসামী জামিনে মুক্তি পেয়েছে।

২৬ অক্টোবর রাতে অশোক বিশ্বাসের বাড়িতে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে দাবি করেছেন গ্রাম পুলিশ আবু হাসান, দফাদার আব্দুস সাত্তার, রফিকুল ইসলাম, কামালকাটির মোমিন গাজী, গণেশ মণ্ডলসহ কয়েকজন।

এ ব্যাপারে আশাশুনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মমিনুল ইসলাম ২৬ অক্টোবর রাতে অশোক বিশ্বাসের বাড়িতে হামলা , ভাঙচুর ও লুটপাটের কথা অস্বীকার করে বলেন, তদন্তে সত্যতা মেলেনি। পুজা মণ্ডপে পুলিশের সহায়তায় জুয়ার বোর্ড চালানোর কথা ঠিক নয়।

তবে টিসিবি পণ্য চুরির ঘটনা অস্বীকার না করেই বলেন, এ ঘটনায় বুধবার বিকেল ৫টা পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট টিসিবি ডিলার, ইউপি চেয়ারম্যান বা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার পক্ষে থানায় কোন অভিযোগ করা হয়নি। যে কারণে একজন শিক্ষক, ইউপি সদস্য ও ইউপি পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতিতে গণধোলাইটি পরিকল্পিতভাবে করা হয়েছে বলে অনেকেই মনে করেন। তবে ঘটনার তদন্তে বাস্তবতা অনুযায়ি আদালতে পুলিশ প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।

Please follow and like us:
Tweet 20

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
error

Enjoy this blog? Please spread the word :)