দেবহাটায় স্ত্রীর ডিভোর্স নোটিশ পেয়ে শ্বশুরকে খুন করলো জামাতা

দেবহাটা প্রতিনিধি:
সাতক্ষীরার দেবহাটায় স্ত্রীর ডিভোর্স নোটিশ পেয়ে শ্বশুরকে খুন করার অভিযোগ উঠেছে এক জামাতার বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার দিবাগত রাত একটার দিকে উপজলার মাটিকুমড়া গ্রামে এ হত্যার ঘটনা ঘটে।
নিহতের নাম আজগার আলী সরদার (৫৫)। তিনি দেবহাটা উপজলার মাটি কুমড়া গ্রামের মৃত সুরত আলী সরদারর ছেলে ও পেশায় একজন কষক ছিলেন।
                                                                                                      ছবি:  জামাতা
মাটিকুমড়া গ্রামের আক্তার হাসেন সরদার জানান, তার বড় ভাই আজগার আলীর ছোট মেয়ে শিল্পী খাতুনের সঙ্গে কালিগঞ্জ উপজেলার তারালী ইউনিয়নর বরয়া গ্রামের মুজিবর রহমানের ছেলে খালাত ভাই  সালাহউদ্দিনের দু’ বছর আগে বিয়ে হয়। সালাহউদ্দিন বেকার হওয়ায়  বিয়ের পর থেকে যৌতুকের দাবিতে শিল্পীকে প্রায়ই নির্যাতন করতো। এ নিয়ে কয়েকবার শালিস হয়েছে। এরপরও নির্যাতন বন্ধ না হওয়ায় ১০ দিন আগে শিল্পীকে বাড়িতে নিয়ে এসে সালাহউদ্দিনের ঠিকানায় তালাকনামা পাঠিয়ে দেওয়া হয়। এত ক্ষুব্ধ হয়ে সালাহউদ্দিন গত রবিবার ও সোমবার গভীর রাতে তাদের(আক্তার) বাড়ির পাশ ঘোরাঘুরি করতো। কখনো তাকে গাছের উপর উঠে বসে থাকতে দেখা গেছে।
আক্তার হোসেন অভিযাগ করে বলেন, মঙ্গলবার রাত ১০টায় ভাত খেয়ে নিজের ঘরের বারাদায় মশারী টানিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন ভাই আজগার। দিবাগত রাত একটার দিক আগে থেকে ওঁৎ পতে থাকা সালাহউদ্দিন ঘুম অবস্থায় মশারির উপর দিয়ে আজগার আলীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে চলে যায়। ভাইয়ের চিৎকার শুনে তিনিসহ স্থানীয়রা ছুঁটে এসে আজগার আলীকে রাত সোয়া দুইটার দিকে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেন।
কিন্তু আজগর আলীর শারিরীক অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় সামেক হাসপাতালে ভর্তি না নিলে বুধবার ভোর সোয়া চারটার দিকে তাকে খুলনা ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। সেখানে জরুরী বিভাগে চিকিৎসা চলাকালিন ভোর ৫টার দিক আজগার আলী মারা যান। খুলনা ২৫০ শয্যা হাসপাতাল ময়না তদন্ত শেষ বিকেলে লাশ গ্রামের বাড়ির পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে।
নিহত আজগার আলীর স্ত্রী মনোয়ারা খাতুন জানান, শ্বশুরকে হত্যার পর সালাহউদ্দিন ভারতে পালিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা এঁটেছে। সেজন্য খুনের আগেই ভারতীয় ভিসা প্রস্তুত করে রাখে সে। যে কোন সময় সালাহউদ্দিন ভারতে পালাতে পারে বলে তিনি আশঙ্কা করছেন।
দেবহাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শেখ ওবায়দুল্লাহ জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।
Please follow and like us:
Tweet 20

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
error

Enjoy this blog? Please spread the word :)