তালার কলেজছাত্রীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে ধর্ষনের চেষ্টা 

কিশোর কুমারঃ
সাতক্ষীরার তালা উপজেলার এক কলেজ ছাত্রীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে ধর্ষনের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে  পল্লীচিকিৎসক  সহ বকাটে ২ যুবকের বিরুদ্ধে।  এ ঘটনার ১৬দিন অতিবাহিত হওয়ার পর বিচার না পেয়ে অবশেষে  থানায় মামলা দ্বায়ের করেছে ভুক্তভোগীর পরিবার। ঘটনাটি ঘটেছে গত ১৬ জানুয়ারি শনিবার  উপজেলার বকশিয়া গ্রামের পল্লী চিকিৎসক  একরামুল হক কামেলের  বাড়িতে।
এই ঘটনার পর থেক লা-পাত্তা হয়েছে অভিযুক্ত  ঐ দুই  যুবক।  ভূক্তভোগী কলেজ ছাত্রী একই উপজেলার দাদপুর গ্রামের মেয়ে ও  কুমিরা মহিলা ড্রিগ্রী কলেজের এইচ এস সি ১ম বর্ষের ছাত্রী।   অনুসংন্ধানকালে জানা যায়, মাস দুই  আগে সাতক্ষীরা শহরের  একটি বেসরকারী হাসপাতালে পরিচয় হয় ভিক্টিম ও  উপজেলার  সেনপুর গ্রামের মেক্তার আলীর ছেলে মেহেদি  হাসান ওরফে নাইমের  সাথে। এরপর তাদের মধ্যে গড়ে ওঠে  বন্ধুত্বপূর্ন সম্পর্ক। ঘটনার দিন মেহেদী  তাকে বন্ধুর বাড়িতে  বেড়াতে যাওয়ার কৌশালে ঘটনাস্থলে ভিক্টিমকে  নিয়ে যায় ।  অতপর পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী পল্লীচিকিৎসক একরামুল বাড়ির গেটে তালা ঝুলিয়ে নামাজ পড়ার কথা বলে সটকে পড়ে  ।  এই সুযোগে  মেহেদি তখন ভিক্টিমের উপর  ধর্ষনের চেষ্টা চালায়। কিন্তু  ধর্ষনে ব্যার্থ হয়ে মেহেদী  তখন তার   সহযোগী একরামূলকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে  ডেকে আনে। এক পর্যায়ে  তারা দুজন  একত্রিত হয়ে পুনারায় ভিক্টিমকে  ধর্ষনের চেষ্টা চালায়। ঐ সময়  ভিক্টিমের ডাকচিৎকারে  স্থানীয়রা ছুটে আসলে কৌশালে  লম্পট দুইযুবক পালিয়ে যায়।
পরবর্তীতে  স্থানীরা মেয়েটি উদ্ধার করে পাটকেলঘাটা থানার কুমিরা ইউনিয়নের  কদম তলা মোড়ে নামকস্থানে  মটর সাইকেলযোগে পৌছে দেয় ও ভিক্টিমের  পরিবারকে ডেকে  ঘটনাটি খুলে বলে। তাৎক্ষনিকভাবে ভিক্টিমের পরিবার  থানা পুলিশের সহয়তা নিতে চাইলে স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল বিচারের আশ্বাস ও মান সম্মানের ভয় দেখিয়ে তাদের  নিবৃৃত্ত করে। এরপর প্রভাবশালী মহল বিয়ে এবং মোটাঅংকের  অর্থের লোভ  দেখিয়ে দিনের পর দিন তাদের  ব্লাকমেইলিং করতে থাকে। এক সময়ে সেই  প্রভাবশালীচক্রটি  গনমাধ্যমকর্মী ও থানা পুলিশকে ম্যানেজ করবে বলে  মেহেদী হাসানের পরিবারের কাছ থেকে বিপুল  অর্থ  হাতিয়ে নিয়েছে  বলেও  অনুসংন্ধানে জানা গেছে  । অবশেষে বিচার না পেয়ে  মঙ্গলবার (২ফেব্রয়ারি)রাতে পাটকেলঘাটা  থানায় একটি মামলা দ্বায়ের করে ভিক্টিমের মা।
ঘটনার বিষয়ে  অভিযুক্ত ২ যুবকের সাথে কথা বলার জন্য যোগাযোগের  চেষ্টা করলে তাদের  মোবাইলফোনটি বন্দ পাওয়া যায়।
পাটকেলঘাটা থানা পরিদর্শক (ওসি) ওয়াহিদ মুর্শেদ জানান, এ ঘটনায় অভিযুক্ত ২যুবকের বিরুদ্ধে  ভিক্টিমের মা বাদী হয়ে থানায় একটি  মামলা দ্বায়ের করেছে মামলা নং-২তারিখ(২-২-২০২১)।তিনি আরও জানান, আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।
Please follow and like us:
Tweet 20

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
error

Enjoy this blog? Please spread the word :)