সাতক্ষীরা ভোমরা স্থলবন্দর দিয়ে গত তিন দিন যাবত পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করেছে ভারত

ফিচার সাতক্ষীরা

নিজস্ব প্রতিনিধি:
সাতক্ষীরা ভোমরা স্থলবন্দর দিয়ে গত তিন দিন যাবত পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দিয়েছে ভারত। সোমবার সকাল থেকে বুধবার দুপুর পর্যন্ত ভারতীয় কোনো পেঁয়াজের ট্রাক ভোমরা স্থলবন্দরে প্রবেশ করতে দেখা যায়নি। তবে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধের রাখার ব্যাপারে ভারতীয় ঘোজাডাঙ্গা কাষ্টমস ও সিএন্ডএফ কর্তৃপ˙ লিখিত ভাবে কিছু জানাননি বলে জানান ভোমরা স্থল কাষ্টমস ও সিএন্ডএফ নেতারা। তবে, পেয়াজ রপ্তানী বন্ধ হলেও অন্যান্য পন্যবাহী ট্রাক ভারত থেকে ভোমরা বন্দরে প্রবেশ করছে।

ভোমরা স্থলবন্দরের সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান নাসিম জানান, গত তিন দিন যাবত হঠাৎ করেই পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দিয়েছে ভারত। ভারতীয় ঘোজাডাঙ্গা কাষ্টমস ও সিএন্ডএফ কর্তৃপ˙ পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ রাখার ব্যাপারে ভোমরা কাষ্টমস ও সিএন্ডএফ নিতৃবৃন্দকে এখনও পর্যন্ত কোন কিছু লিখিত ভাবে জানাননি।

ভোমরা স্থলবন্দরের শুল্ক ষ্টেশনের সূত্রে জানাযায়, ভোমরা স্থলবন্দর দিয়ে গত এক সপ্তাহে (গত ৬ সেপ্টেম্বর থেকে ১৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত) ৫৩৩ টি ট্রাক যোগে মোট পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে ১২ হাজার ৪৩৭ মেট্রিক টন। তিনি আরো জানান, সোমবার সকাল থেকে আজ বুধবার দুপুর পর্যন্ত এখনও কোন ভারতীয় পেঁয়াজের ট্রাক বন্দর দিয়ে প্রবেশ করেনি এবং পেঁয়াজ রফতানি বন্ধের ব্যাপরে তারা লিখিতভাবে এখনও পর্যন্ত তাদের কিছু জানাননি।
এদিকে পেঁয়াজ আমদানী কারক ও ভোমরা শ্রমিকরা পেঁয়াজ বন্ধ থাকায় অর্থনৈতিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বলে জানান বিভিন্ন ব্যবসায়ি ও শ্রমিকরা।

ভোমরা স্থলবন্দরের রাজস্ব কর্মকর্তা মহসিন হোসেন বলেন, সকাল থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্তও ভারতীয় কোনো পেঁয়াজের ট্রাক বন্দর দিয়ে প্রবেশ করেনি। পেঁয়াজ রফতানি বন্ধের কোনো কারণও জানা যায়নি। লিখিতভাবে ভারতের ঘোজাডাঙা বন্দর কর্তৃপক্ষও কিছু জানায়নি। তবে শুনছি ভারত পেয়াজ রফতানি বন্ধ করে দিয়েছে।

সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এস এম মোস্তফা কামাল বলেন, পেঁয়াজ নিয়ে সামপ্রতিক সময়ে যে অস্থিরতা সৃষ্টি হয়েছে আমাদের প্রতিবেশি দেশ ভারত তারা হটাৎ করে পেঁয়াজ রপ্তানি স্থগিতের নির্দেশনা তাদের বিভাগকে দিয়েছে তার ফলে আমাদের দেশে তিন দিন কোন পেঁয়াজের ট্রাক আসেনি।

 

পূর্বের যে পেঁয়াজ ছিলো আমরা দেখছি গত এক সপ্তাহ যাবত কত পেঁয়াজ আসছে এবং তার মূল্য কত ছিলো ও বাজারে সেটি কি দরে বিক্রয় হচ্ছে ? কোন অপতৎপরতা বৃদ্ধির যে চেষ্টা রোধ করবে সে জন্য আমাদের ট্রাস্টফোস সক্রিয় রয়েছে এবং ওখানে যেয়ে তারা পরিদর্শন করে এসেছে যে,কোথায় কোথায় কত পেঁয়াজ রয়েছে এবং স্থানিয় বাজারে এটির মূল্য কত রয়েছে ফলে কেও যদি এটার মূল্য বাড়ানোর চেষ্টা না করে সে ব্যাপারে তাদেরকে সতর্ক করা হয়েছে। আজ থেকে এটা আরো কঠোর ভাবে মনিটরিং থাকবে এবং আমরা আইন প্রয়োগের আগে তাদেরকে বুঝিয়ে দিয়ে আসছি কেও চেষ্টা করলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *