কালিগঞ্জের সিমান্তবর্তী উপকূলীয় এলাকায় বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন শেল্টার নির্মাণের দাবি

কালিগন্জ
হাফিজুর রহমান শিমুলঃ
কালিগঞ্জের উপকূলীয় এলাকায় আবহাওয়া ও জলবায়ুর পরিবর্তন ফলে যে কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে উপকূলীয় সিমান্তবর্তী কালিন্দী নদীর তীরে হাড়দ্দাহ, বসন্তপুর গ্রামের হাজার হাজার মানুষেরর জন্য নিরাপদ আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণের দাবি উঠে। সোমবার বিকেলে উপজেলার হাড়দ্দাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সম্মুখে বিভিন্ন শ্রেণীর শত শত মানুষ উপস্হিত হয়ে ‘বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন শেল্টার’ নির্মাণের দাবি জানান। স্হানীয় এলাকার বাসিন্দা  সাবেক ইউপি সদস্য আলহাজ্ব মোস্তাফিজুর রহমানসহ অনেকে জানান, বর্তমানে উপকূলীয় এলাকার অধিকাংশ বেড়িবাঁধ এখন নাজুক হয়ে গেছে। নদীর ভয়াবহ ভাঙন অব্যাহত থাকায় বেড়িবাঁধ নদীগর্ভে বিলীন হতে চলেছে। দুর্বল বাঁধ ভেঙে যে কোনো মুহূর্তে নদীতে বিলীন হয়ে যেতে পারে এই এলাকাটি।
আজ পর্যন্ত এই এলাকার মানুষের আশ্রয় ও নিরাপত্তার জন্য সাইক্লোন শেল্টার না থাকায় বন্যা ও জলোচ্ছ্বাসসহ যে কোন দুর্যোগে বড় ধরণের ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে তাদের। তাই স্হানীয় এলাকার শত শত মানুষ বিদ্যালয়টি ‘বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন শেল্টার’ নির্মাণের জন্য এমপি এসএম জগলুল হায়দারসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। বিষয়টি সম্পর্কে স্হানীয় ইউপি সদস্য শেখ আলাউদ্দীন সোহেল বলেন, উপকূলীয় এলাকার বেড়িবাঁধ ভাঙন অব্যাহত থাকায় মানুষেরা আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে। এজন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে হাড়দ্দাহ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ‘বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন শেল্টার’ নির্মাণের দাবী করছি। উপজেলা শিক্ষা অফিসার শামসুন্নাহার বলেন, সহকারী শিক্ষা অফিসারের মাধ্যমে হাড়দ্দাহ বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন শেল্টার নির্মাণের দাবীর বিষয়টি শুনেছি। বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন শেল্টার নির্মাণের বিষয়টি এলজিইডির দায়িত্বে। তাছাড়া এলাকায় এটি নির্মাণ করতে সহযোগিতার প্রয়োজন হলে দপ্তর থেকে করা হবে। এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী জাকির হোসেনে বলেন, স্কুলটি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের একটি টিম সরেজমিনে পরিদর্শন করেছেন। তবে এ বিষয়ে বিস্তারিত পরে জানা যাবে। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক রাসেল এর নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, সরকার উপকূলীয় এলাকার মানুষের আশ্রয়ের জন্য সাইক্লোন শেল্টার নির্মাণে প্রস্তুত। তবে যদি কোন ব্যক্তি হাড়দ্দাহ এলাকায় ৩০ শতক জায়গা দান করেন তাহলে সেখানে সাইক্লোন শেল্টার নির্মাণ করা হবে।
Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *