৬ মাসেও অপহৃত ছেলের সন্ধান পাইনি কুল্যার কমলেশ

0
194

নিজস্ব প্রতিনিধি :
আশাশুনি উপজেলার কুল্যা ইউনিয়নের দাঁদপুর গ্রামের কমলেশ সরকার তার পুত্র তন্ময় সরকার (লোচন) অপহরণ হওয়ার পর ৬ মাস অতিবাহিত হলেও কোন সন্ধান করতে না পেরে হতাশ হয়ে পড়েছেন। পুলিশের ভূমিকায় সন্ধিহান হয়ে বিষয়টি নিয়ে লিখতে সাংবাদিকদের কাছে করুন আকুতি জানিয়েছেন।
লিখিত বক্তব্যে তিনি জানান, অপহরণের ঘটনা নিয়ে বিজ্ঞ সিনিঃ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালত, সাতক্ষীরায় সিআরপি ৭৪/১৬ মামলা দায়ের করা হয়। তন্ময় সাতক্ষীরা দিবানৈশ কলেজের ২য় বর্ষের ছাত্র। গত ১৭ এপ্রিল ১নং আসামী একই গ্রামের তারাপদ মন্ডলের বাড়ির সামনে রাস্তায় তন্ময় গেলে, পূর্ব শত্রুতার জেরধরে পূর্ব পরিকল্পির ভাবে তাকে তার (তারাপদ) কন্যার অংক কষে দিতে বলে এবং কৌশলে বাড়িতে নিয়ে বাঁশের লাঠি, রড ইত্যাদি দিয়ে মারপিট করে। ভিকটিমের চিৎকারে স্বাক্ষীরা এগিয়ে গেলে তারপদ’র কন্যাকে ধর্ষনের চেষ্টার অভিযোগ করে। পরে তারা ভিকটিমকে মাইক্রোবাসে করে অপহরণ করে নিয়ে যায়। বিষয়টি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, গ্রাম পুলিশ ও গন্যমান্য ব্যক্তিদের জানিয়ে উদ্ধারের চেষ্টা করেও সম্ভব হয়নি। বিজ্ঞ আদালত আশাশুনি থানা পুলিশকে তদন্তপূর্ব ১৬/৬/১৬ তাং মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ করলেও করা হয়নি। এদিকে মামলার আসামী ধর্ষন চেষ্টার অভিযোগ এনে মামলা করলে দুই আসামীর একজনকে বাদ দিয়ে চার্জিট দাখিল করা হয়। অথচ তার মামলার প্রতিবেদন না দেওয়ায় বিজ্ঞ আদালত তৎকালীন ওসি আশাশুনিকে কারণ দর্শানোর আদেশ দেন। তখন পুলিশ তার প্রতি আক্রোশে মামলাটির তদন্ত না করে, তাকে বা তার কোন স্বাক্ষীর লিখিত/মৌখিক বক্তব্য না নিয়ে মনগড়া প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করা হয় বলে তিনি আদালতে নারাজি দিয়েছেন। উপরন্তু তার পুত্র তন্ময়কে অপহরণের পর হত্যা করা হতে পারে বলে তাদের বিশ্বাস। কিন্তু পুলিশ তাকে উদ্ধারের কোন চেষ্টা করেনি, আসামীদের উপর কোর প্রকার চাপ প্রয়োগ করেনি, মামলাও নেয়নি। বরং এই অপহরণ ও হত্যার ঘটনা থেকে আসামীদেরকে রক্ষা পাইয়ে দিতে মিথ্যা ধর্ষন মামলা নিয়ে বিষয়টি ভিন্নখাতে প্রবাহের সুযোগ করে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেন। সংবাদ সম্মেলনে কমলেশ সরকার তারাপদ মন্ডল ও তার স্ত্রীর অনৈতিক কর্মকান্ডের বর্ননা দিয়ে বলেন, তারা সমাজে নানা অপকর্মের সাথে জড়িত। তারা নানাভাবে তাকে হুমকী দিয়ে চলেছে। তাদের হাত থেকে রক্ষা এবং অপহৃত পুত্রের সন্ধান পেতে ও অপহরণকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থার দাবীতে তিনি সাংবাদিকদের সহযোগিতা কামনা করেন।

মোঃ নুর আলম/একে/আই।