১১ দফা দাবিতে শিক্ষক কর্মচারি ফ্রন্টের সংবাদ সম্মেলন

0
44

শহর প্রতিনিধিঃ

সরকারি শিক্ষক কর্মচারীদের সাথে আমাদের বেতন বৈষম্য ছাড়াও সুযোগ সুবিধার ক্ষেত্রেও আমাদের প্রতি বিমাতাসুলভ আচরণ করছেন সরকার। আমাদের বেতন প্রবৃদ্ধি নেই, উৎসব ভাতায় বৈষম্য, বৈশাখী ভাতা নেই, পূর্ণাঙ্গ চিকিৎসা ভাতা নেই, বাড়িভাড়া নেই এমনকি পূর্ণাঙ্গ পেনসনও নেই। দেশের পাঁচ লক্ষ শিক্ষক কর্মচারী যারা বিরতিহীন ভাবে শিক্ষার কারিগর হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন, তারা এমন বৈষম্যের শিকার হয়ে আসচ্ছেন।
মঙ্গলবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন জাতীয় শিক্ষক কর্মচারী ফ্রন্ট নেতা সাতক্ষীরা জেলা বাকশিস সভাপতি অধ্যক্ষ আবদুর রহমান।
তিনি বলেন এমন সব নানা বৈষম্যের  মধ্যেও  সরকার ঘোষণা দিয়েছেন যে চলতি জুলাই থেকে কল্যাণ ট্রাস্ট ও অবসর ভাতা থেকে শতকরা ১০ টাকা করে কর্তন করা হবে। তিনি সরকারের এই সিদ্ধান্ত অচিরেই প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে বলেন এতে শিক্ষক কর্মচারীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। তাদের রুটি রুজির ওপর আঘাত পড়বে। তিনি বলেন কল্যাণ ভাতা ও অবসর ভাতার টাকা প্রাপ্তির লক্ষ্যে এখনও দেশের ৭০ হাজার শিক্ষক কর্মচারী তালিকাভুক্ত হয়ে সিরিয়ালে রয়েছেন। দিন দিন এই সংখ্যা আরও বাড়ছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, এখন এই ভাতা পেতে কমপক্ষে সাড়ে চার বছর অপেক্ষা করতে হচ্ছে। সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় পর্যায়ে ১১টি সংগঠন নিয়ে গঠিত জাতীয় শিক্ষক কর্মচারী ফ্রন্ট নেতা অধ্যক্ষ আবদুর রহমান আরও বলেন, তারা এ সকল বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন। পরে শিক্ষকেদের ১১ দফা দাবি তুলে ধরেন তিনি।
দাবিগুলির মধ্যে আরও রয়েছে অনুপাত প্রথা ব্যতিরিকে শিক্ষকদের পদোন্নতি, টাইম স্কেল প্রদান, নন এমপিও শিক্ষকদের এমপিও ভূক্তকরণ, কর্মচারীদের চাকুরি বিধি প্রণয়ন, ইউনেস্কোর সুপারিশ অনুযায়ী প্রতিষ্ঠান প্রধানদের সভাপতি করে বিধিমালা সংশোধন, বেসরকারি প্রধান শিক্ষকদের সরকারি সহকারী শিক্ষকদের ন্যায় স্কেল প্রদান, কারিগরি ও সাধারণ শিক্ষার বৈষম্য দুরীকরণ, পরীক্ষা পদ্ধতির সংস্কার ও শিক্ষা উপকরণের মূল্য হ্রাস, শিক্ষায় বরাদ্দ বৃদ্ধি এবং শিক্ষার মান উন্নয়নের ব্যবস্থা গ্রহণ।
তিনি বলেন এসব দাবি আদায়ের লক্ষ্যে মঙ্গলবার জেলা সদরে সংবাদ সম্মেলন, ২০ জুলাই মানববন্ধন, ২৩ জুলাই উপজেলা সদরে দাবির সপক্ষে মিছিল ও ৩০ জুলাই জেলা সদরে শিক্ষক কর্মচারী সমাবেশ ও মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী বরাবর স্মারক লিপি পেশ কর্মসূচি ঘোষণা করেন তিনি।
সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, জেলা ফ্রন্ট নেতা ও কারিগরি কলেজ শিক্ষক সমিতির সভাপতি  অধ্যক্ষ  খান আশরাফ আলি, সাধারণ সম্পাদক তপন শীল, অধ্যক্ষ আবু সাঈদ, অধ্যক্ষ এনামুল ইসলাম, অধ্যক্ষ শহিদুল ইসলাম, অধ্যক্ষ আজিজুর রহামান, উপাধ্যক্ষ ময়নুল হাসান, সীমান্ত টেকনিক্যাল কলেজের আল আমিনুর রহমান, পিএন হাইস্কুল প্রধান শিক্ষক হাফিজুল ইসলাম, কর্মচারি ফেডারেশন সভাপতি আবদুল ওহাব  ও  সাধরণ সম্পাদক আজমল হোসেন প্রমুখ ।

LEAVE A REPLY