স্বল্পদৈর্ঘ্য ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্রের জন্য পুরস্কার

0
120

ডেস্ক রিপোর্ট :

শেষ হলো স্বল্পদৈর্ঘ্য ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্র উৎসব। নির্মাণের স্বীকৃতিস্বরূপ একগুচ্ছ চলচ্চিত্রের মধ্য থেকে বেছে দুই বিভাগের ছয়টি শাখায় দেওয়া হলো পুরস্কার। নির্মাতাদের হাতে এ পুরস্কার তুলে দেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।
গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে ছিল ‘বাংলাদেশ স্বল্পদৈর্ঘ্য ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্র উৎসব ২০১৬’-এর সমাপনী অনুষ্ঠান। শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলীর সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। উৎসবের এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমার জানামতে, বাংলাদেশে চলচ্চিত্র ইনস্টিটিউট আছে। কিন্তু আমাদের কোনো চলচ্চিত্রকেন্দ্র নেই। আমি মনে করি, আমাদের একটি চলচ্চিত্রকেন্দ্র স্থাপন করা প্রয়োজন।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা অনেক দিক থেকে ভারত ও পাকিস্তানের চেয়েও এগিয়ে। চলচ্চিত্রেও আমরা তাদের থেকে এগিয়ে থাকতে চাই।’
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চলচ্চিত্র পরিচালক সৈয়দ সালাউদ্দিন জাকী, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মফিদুল হক, চলচ্চিত্র গবেষক ফাহমিদুল হক, ফেডারেশন অব ফিল্ম সোসাইটিজ অব বাংলাদেশের সভাপতি লায়লুন নাহার। সালাউদ্দিন জাকী বলেন, সিনেমা বানানোর পাশাপাশি সমালোচনার বিষয়টিকেও মাথায় রাখতে হবে। সমালোচনা বলতে শুধু নেতিবাচক নয়, সিনেমা নিয়ে ব্যাখ্যার জায়গাটিকেও সামনে আনার পরামর্শ দেন তিনি।
আলোচনার পর মনোনীত ছবিগুলোর মধ্য থেকে দেওয়া হয় পুরস্কার। বিগত পাঁচ বছরে নির্মিত চলচ্চিত্রগুলোর ভেতর থেকে স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র শাখায় শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র পুরস্কার পায় মো. আবিদ মল্লিকের পথ, দি সুজ ছবির জন্য শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র নির্মাতার পুরস্কার পান সাদাত হোসাইন। বিশেষ জুরি পুরস্কার পেয়েছে মো. মামুনুর রশীদের মাটির পাখি, প্রামাণ্যচিত্র শাখায় শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রের পুরস্কার পায় মকবুল চৌধুরীর নট পেনি নট এ গান, বিষকাঁটা ছবির জন্য শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র নির্মাতার পুরস্কার পান ফারজানা ববি ও বিশেষ জুরি পুরস্কার পায় ফৌজিয়া খানের যে গল্পের শেষ নেই।
২ অক্টোবর থেকে সারা দেশের ৬৪টি জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে শুরু হয়েছে এ চলচ্চিত্র উৎসব। এ উপলক্ষে সারা দেশে দেখানো হয় মোট ৮৪টি স্বল্পদৈর্ঘ্য ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্র। সহযোগিতা করেছে ফেডারেশন অব ফিল্ম সোসাইটিজ অব বাংলাদেশ, বাংলাদেশ শর্ট ফিল্ম ফোরাম এবং বাংলাদেশ প্রামাণ্যচিত্র পর্ষদ। উৎসবটি প্রয়াত কবি সৈয়দ শামসুল হককে উৎসর্গ করা হয়।

LEAVE A REPLY