স্টান্ট দেখাতে গিয়ে তরুণের মৃত্যুতে নানা প্রশ্ন

0
86
ডেস্ক রিপোর্ট:
দু:সাহসিক ইন্টারনেট ভিডিও দিয়ে টাকা কামাতে গিয়ে এক চীনা তরুণ উ ইয়ংনিং ৬২ তলা ভবন থেকে পড়ে মারা যাওয়ার পর প্রশ্ন উঠছে – এসব প্ল্যাটফর্ম আর তাদের দর্শকরাও কি এ জন্য দায়ী নয়?
চীনে ইন্টারনেট ভিডিও শিল্পে এখন শত শত কোটি ডলার বিনিয়োগ হচ্ছে, আর লাখ লাখ লোক `জ্যান্ত মাছ খাওয়া`, `কাঁচা ডিম গিলে ফেলা`, `নগ্ন নৃত্য` বা `আকাশ-ছোঁয়া উঁচু ভবনে ঝুলে থাকা`র মতো দু:সাহসিক কাজের ভিডিও প্রচার করে অর্থ আয় করছে।
এ ভাবেই চীনের চাংশা শহরে এক ৬২ তলা ভবনে উঠেছিল উ ইয়ংনিং – কোনো রকম নিরাপত্তা যন্ত্রপাতি ছাড়াই।
সেই ভবনের কোনো একটি অংশ ধরে ঝুলে থাকা অবস্থায় ভিডিও করে সেই ভিডিও সে ইন্টারনেটে ছাড়বে – এই ছিল তার পরিকল্পনা। এমন কাজ সে আগেও করেছে।
কিন্তু এবার ঘটলো ভয়াবহ দুর্ঘটনা। উ ইয়ংলিং পড়ে গেল, ৬২ তলা ভবন থেকে সোজা নিচের রাস্তায়। তৎক্ষণাৎ মৃত্যু।
তার মৃত্যুর খবর অবশ্য ইন্টারনেটে ছড়ায় মাত্র কিছুদিন আগে, প্রথম এটা প্রকাশ করে তার বান্ধবী।
আর পরে তা নিশ্চিত করে কর্তৃপক্ষ। তার সেই পতনের ‘ভিডি’ওটি গত সপ্তাহে ইন্টারনেটে বেরিয়েছে। বিবিসি
বেজিংএ একটি সংবাদমাধ্যম অনুসন্ধান করে বের করেছে যে ৫০০টিরও বেশি ছোট ভিডিও এবং `লাইভ স্ট্রিম হুওশান নামে একটি ওয়েবসাইটে ছেড়েছিল উ – যা থেকে সে আয় করে সাড়ে পাঁচ লাখ ইউয়ান বা প্রায় ৮৩ হাজার মার্কিন ডলার। হুওশানে তার `ফ্যান` ছিল ১০ লাখ।
এর পর এখন চীনে শুরু হয়েছে আত্মানুসন্ধান। প্রশ্ন উঠছে হুওশানের মতো এসব ইন্টারনেট প্ল্যাটফর্ম এবং তাদের দর্শকরাও কি এ মৃত্যুর জন্য কোনভাবে দায়ী নয়?
প্রশ্নটা উঠছে কারণ হুওশানে শ্লোগান হলো, একটি ভিডিও করে আপনি টাকা রোজগার করতে পারেন।