সুস্থ গরু চেনার উপায়

0
65

 

প্রতিবছর কোরবানির ঈদে পশু কেনা হলেও তা যাচাই-বাছাই করার পারদর্শিতা থাকে হাতে গোনা কিছু মানুষের। ফলে কেউ ভালো পশু কিনতে গিয়ে দালালের খপ্পরে পড়ে বাড়তি টাকা গোনেন, কেউ আবার অসাধু বিক্রেতার ফাঁদে পড়ে কৃত্রিম উপায়ে মোটাতাজা করা পশু ঘরে আনেন।কৃত্রিম উপায়ে মোটাতাজা করা পশুগুলো অনেকসময় ঈদের আগেই অসুস্থ হয়ে কোরবানির অযোগ্য হয়ে যায়, কিছু পশু মারাও যায়। ফলে ক্রেতার মাথায় হাত পড়ে। প্রাণ ডেইরির গ্রুপের পশু চিকিৎসক মোহাম্মদ সিদ্দিক বলেন, “গরু মোটাতাজা করার জন্য বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি রয়েছে। এই পদ্ধতিতে ইউরিয়া, চিটাগুড়, খড় মিশিয়ে গরুকে খাওয়ানো হয়। মোটাতাজা করতে চার থেকে পাঁচ মাস সময় লাগে। তবে ঈদের বাজারে ভালো দাম পেতে তিন সপ্তাহ থেকে দুই মাসের মধ্যে গরুকে মোটা করার জন্য বিভিন্ন ধরনের ওষুধ ও রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার করেন অনেক ব্যবসায়ী।”“ওষুধ বা রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহারে গরু আসলে মোটাতাজা হয় না। বরং শরীরে পানি জমে যাওয়ার কারণে হৃষ্টপুষ্ট দেখায়। এসব ওষুধ ও রাসায়নিক দ্রব্য গরুর শরীরের স্বাভাবিক বিপাক প্রক্রিয়া নষ্ট করে।” বললেন এই পশু চিকিৎসক। এরকম মোটাতাজা করা গরু চেনার উপায় সম্পর্কে মোহাম্মদ সিদ্দিক বলেন, “স্বাভাবিকভাবেই গরুর গায়ে আঙুল দিয়ে চাপ দিলে মাংস একটু দেবে যায়। সুস্থ গরুর ক্ষেত্রে এই চাপ ছেড়ে দিলেই মাংস স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসে। তবে কৃত্রিম প্রক্রিয়ার মোটাতাজা করা গরুর গায়ে আঙুলের চাপ দিলে তা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরতে বেশি সময় নেবে।”পরামর্শ দিতে গিয়ে সিদ্দিক আরও বলেন, “পাশাপাশি দেখতে হবে গরু চটপটে কিনা। শরীরে পানি জমার কারণে কৃত্রিম উপায়ে মোটাতাজা করা গরুগুলো এক জায়গায় বসে থাকে, নড়াচড়া কম করে।”সাধারণত ছাগল বা অন্য পশুর চাইতে গরুর উপরেই এই ধরনের মোটাতাজা প্রক্রিয়া চালানো হয়। তাই এরকম গরু সম্পর্কে সচেতন হওয়ার জন্য আরও বেশকিছু পদ্ধতি জানান এই পশু-চিকিৎসক।

* ট্যাবলেট খাওয়ানো হয়েছে কিনা তা নিশ্চিত হতে গরুর শ্বাস-প্রশ্বাস দেখতে হবে। ট্যাবলেট খাওয়ানো গরুর শ্বাস-প্রশ্বাস দ্রুত হয়, মনে হয় যেন হাঁপাচ্ছে আর প্রচণ্ড ক্লান্ত দেখায়।

* পাশাপাশি ট্যাবলেট খাওয়ানো গরুর গায়ে পানি জমার কারণে মাংস অত্যান্ত নরম হয়ে যায়। এই বিষয়ে নিশ্চিত হতে পেছনের রানের মাংস পরীক্ষা করতে হবে। সুস্থ গরুর রানের মাংস থাকবে শক্ত। আর ট্যাবলেট খাওয়ানো গরুর ক্ষেত্রে তা হবে নরম। এই ধরনের গরুর প্রস্রাবের পরিমাণও কমে যায়।

* হাটের যে চকচকে চামড়ার গরু আপনার নজর কাড়ছে সেই গরুই ট্যাবলেট প্রয়োগ করা গরু হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। মানুষের শরীরের কোনো অংশ ফুলে গেলে বা পানি জমলে সেই অংশের ত্বক যেমন চকচক করে, ট্যাবলেট খাইয়ে মোটা করা গরুগুলোও তেমনি চকচকে হয়।

তাই গরুর স্বাভাবিক উশকোখুশকো চেহারা, চামড়ার উপর দিয়ে পাঁজরের কয়েকটা হাড় বোঝা যাচ্ছে এমনটা দেখেই কেনা উচিৎ। ট্যাবলেট খাওয়ানো গরুর আরেকটি লক্ষণ হল মুখে অতিরিক্ত লালা বা ফেনা থাকা।