সাতক্ষীরা মহাকুমা প্রশাসকের তথ্যকথা

0
656

মুনসুর রহমান:

ইতিহাসের প্রাপ্ত তথ্যাদি থেকে জানা যায়, যশোর, বুড়ন, সমতট, ব্যাঘ্রতট, বাগড়ি প্রভৃতি নামে নানা সময়ে এলাকাটিকে চিহিুত করা হয়েছে। আর সুলতান দাউদ খান কররানীর পতনের পর বিক্রামাদিত্য ও ভ্রাতা বসন্ত রায় স¤্রাট আকবরের বশ্যতা স্বীকার করে। এবং তারা ১৫৭৭ খ্রিস্টাব্দে স¤্রাট আকবরের কাছ থেকে যশোর রাজ্যের সনদ নিয়েছিলেন। অত:পর বর্তমান কালিগঞ্জ উপজেলার বসন্তপুরে এসে রাজ প্রাসাদ গড়ে তুলেছিলেন। ঐ সময়ে বসন্ত রায় বঙ্গের বিভিন্ন জায়গা থেকে আতœীয়-স্বজনকে এখানে এনে যশোর সমাজ নামে এলাকা তৈরি করেছিলেন। আর রাজা প্রতাপাদিত্যের পতনের পর তাঁর বিশাল সৈন্য বাহিনীর এক অংশ শ্যামনগর – কালিগঞ্জ এলাকায় বসবাস শুরু করেছিলেন। পাঠান বিদ্রোহ দমনের জন্য মুঘলদের পক্ষে সামান্ত রাজা প্রতাপাদিত্য ১৫৯৩ খ্রিস্টাব্দে উড়িষ্যা অভিযান শেষ করে যশোর হয়ে বর্তমানে শ্যামনগর উপজেলার গোপালপুরে এসে গোবিন্দ দেবের মন্দির প্রতিষ্ঠা করেন এবং সে মন্দিরের সেবাইত বল্লাভট্টাচার্যকে নিযুক্ত করেন। ১৬৬৭ খ্রিষ্ট্রাব্দে ইসলাম প্রচারের লক্ষ্যে হযরত শেখ মুহাম্মাদ শাহ ওরফে দরগাহ শাহ নামে এক ব্যক্তি বাগদাদ থেকে সস্ত্রীক নিয়ে বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গা ঘুরে বর্তমান আশাশুনি উপজেলার দরগাপুরে সংসার জীবন শুরু করে। তারপর তাঁরই নামানুসারে গ্রামটির নামকরণ করা হয় দরগাপুর। মুঘল রাজত্বের অন্তিমকালে ১৭২৭ খ্রিস্টাব্দে রাজকীয় চার্টারের বলে প্রেসিডেন্সী শহরের সৃষ্টি হয়েছিল। অত:পর ১৭৮২ খ্রিস্টাব্দে নদীয়ার জমিদার মহারাজা কৃষ্ণচন্দ্রের মৃত্যুর পর তাঁর অধিকৃত জমিদারী পরগনাগুলো যখন নিলামে ওঠে তখন তাঁরই এক কর্মচারী বিষ্ণরাম চক্রবর্তী বুড়ন পরগনা নিলামে কিনে নেন। এবং পরে তিনি সাতঘরিয়া বা সাতক্ষীরায় এসে বসবাস শুরু করেন। তার আচার-আচরণ ও কর্মদক্ষতার কারণে ব্রিটিশরা তাকে রায় চৌধুরী উপাধি দিয়েছিলেন। ঐ সময়ে তাঁর বংশধররা সাত ঘরিয়ার আশে-পাশে জমি ক্রয়ের মাধ্যমে বসবাস শুরু করে। লর্ড ডালহৌসী (১৮৪৮-১৮৫৬) খ্রিস্টাব্দে বৃটিশ ভারতের গভর্ণর জেনারেল হয়ে আসার পর তিনি সমগ্র বৃটিশ ভারতকে বিভিন্ন মহাকুমায় বিভক্ত করেন। তখন নীল বিদ্রোহ দমন ও স্থানীয় শাসন শক্তিশালী করার লক্ষ্যে যশোর জেলায় কয়েকটি মহাকুমা করার প্রয়োজন হয়েছিল। অত:পর ১৮৫১ সালে সাতক্ষীরাকে যশোর জেলার চতুর্থ মহাকুমা হিসেবে সৃষ্টি করা হয়েছিল। আর এ মহাকুমার প্রধান কার্যালয় কলারোয়াতে স্থাপিত হয়েছিল। জানা যায়, পাবনা জেলার অধিবাসী নবাব আব্দুল লতিফ খান সাতক্ষীরা মহাকুমার প্রথম মহাকুমা প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহন করেছিলেন। তিনি সাতক্ষীরা মহাকুমার ম্যাজিস্ট্রেট থাকাকালীন এ জনপদে নীল চাষীদের প্রতি অত্যাচার, জুলুম এবং শোষণের প্রতিকারের জন্য প্রাথমিক পর্যায়ে বৃটিশ সরকারের কাছে আবেদন করেছিলেন। এ বিষয়ে সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের সাবেক উপাধ্যক্ষ নিমাই চন্দ্র মন্ডল বলেন, এ অঞ্চলে ইংরেজ বিরোধী গণ আন্দোলন শুরু হলে কলারোয়া উপজেলার পিছলাপোল গ্রামের মওদুদ বরকন্দাজ নামে এক কৃষক নেতা এ এলাকায় নীল চাষকে কেন্দ্র করে নীল কুঠিয়ালদের অত্যাচারের প্রতিবাদ করেছিলেন। ১৮৫২ -১৮৫৩ সালে সাতক্ষীরা মহাকুমা স্থাপিত হলেও ১৮৬১ সালে সাতক্ষীরা মহাকুমা হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছিল এবং তৎকালীন সাতক্ষীরার জমিদারদের প্রচেষ্ঠায় মহাকুমার প্রধান কার্যালয় কলারোয়া থেকে মহাকুমা কার্যালয় সাতক্ষীরাতে স্থানান্তরিত করেছিলেন এবং সাতক্ষীরাকে মহাকুমা করে তা যশোর জেলার এবং ১৮৬৩ সালে চব্বিশ পরগনার অধীনে অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল। অত:পর জেলা শহর আইন অনুসারে শহর কমিটি গঠনের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। আর এই আইনের বলে ১৮৬৭ সালে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে টাউন কমিটির আত্মপ্রকাশ ঘটেছিল। জানা যায়, এখানে বহু আগে কয়েক ঘর জমিদার বসবাস শুরু করেছিলেন। আর এখানে গ্যাসের আলো, উন্নত রাস্তাঘাট ও বিশুদ্ধ পানীয় জলের ব্যবস্থা সহ নগর জীবনের সকল সুযোগ-সুবিধা থাকায় এই এলাকার নামকরণ টাউন কমিটির নামানুসারে টাউনশ্রীপুর করা হয়েছিল। আর পরবর্তীতে টাউন কমিটির নাম পরিবর্তিত হয়ে পৌরসভায় রুপান্তরিত হয়। এবং এটিই প্রথম প্রতিষ্ঠিত পৌরসভা। যার নামকরণ করা হয়েছিল টাউনশ্রীপুর পৌরসভা। আর এ পৌরসভার প্রথম চেয়ারম্যান হলেন ফনীভূষণ সরদার। অত:পর ১৮৬৯ সালে সাতক্ষীরা পৌরসভা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। আর এ পৌরসভার প্রথম চেয়ারম্যান হলেন প্রাণনাথ রায় চৌধুরী। আরও পরে ১৮৮২ সালে খুলনা জেলার সাথে সাতক্ষীরা সম্পৃক্ত হয়েছিল। ১৮৮৫ সালে লোকাল সেলফ গভমেন্ট আইন অনুযায়ী ১৮৮৬ সালে তদানীন্তন খুলনা জেলায় প্রথম জেলা বোর্ড গঠিত হয়েছিল। অত:পর সাতক্ষীরা মহাকুমা পর্যায়ে লোকাল বোর্ড সৃষ্টি হয়েছিল। আর প্রশাসনিক সুবিধার জন্য এলাকাকে মহাকুমা বা জেলা যাই বলা হোক না কেন, এর ইতিহাস অতি প্রাচীন? প্রাচীন এই জনপদে মহাকালের সাক্ষী হয়ে যে সকল মহাকুমা বা জেলা প্রশাসকগণ উন্নয়নের জন্য কাজ করে গিয়েছিলেন এবং বর্তমানে সুষ্ঠ, নিরপেক্ষ ভাবে অবদান রেখে অনন্য ভুমিকা পালন করেছেন, তা সকল শ্রেণি পেশার মানুষকে জানানোর জন্য এই পত্রিকায় আজকের লেখা।

আর মহাকুমার জন্মলগ্ন থেকে যে সকল মহাকুমা প্রশাসক ও জেলা প্রশাসকগণ সাতক্ষীরার উন্নয়ন অব্যাহত রেখেছেন। তারা হলেন– নবাব আব্দুল লতিফ (কার্যকাল জানা সম্ভব হয়নি), অক্ষয় কুমার স্বর ০১.০১.১৯০৯ – ০১.০১.১৯১১, আব্দুল হাই ০১.০১.১৯১৫ – ০১.০১.১৯১৬, শ্রী অনাদি রঞ্জন বোস ০১.০১.১৯১৬ – ০১.০১.১৯১৯, শ্রী এম সি মুখোপাধ্যায় ০১.০১.১৯১৯ – ০১.০১.১৯২৪, শ্রী সত্যেন্দ্রনাথ বিশ্বাস ০১.০১.১৯২৪ – ০১.০১.১৯২৮, শ্রী এ সি চট্টোপাধ্যায় ০১.০১.১৯২৮ – ০১.০১.১৯২৯, এস এ লতিফ ০১.০১.১৯২৯ – ০১.০১.১৯৩১, শ্রী কে সি মিত্র ০১.০১.১৯৩১ -০১.০১.১৯৩৩, শ্রী সুধারাম মিত্র ০১.০১.১৯৩৩ – ০১.০১.১৯৩৪, শ্রী সুরেন্দ্রনাথ সরকার ০১.০১.১৯৩৪ – ০১.০১.১৯৩৫, আহম্মদ মিয়া ০১.০১.১৯৩৫ – ০১.০১.১৯৩৬, শ্রী পি সি মজুমদার ০১.০১.১৯৩৬ – ০১.০১.১৯৪০, শ্রী জে সি চট্টোপাধ্যায় ০১.০১.১৯৪০ – ০১.০১.১৯৪১, সৈয়দ আহম্মদউল্লাহ ০১.০১.১৯৪১ – ০১.০১.১৯৪২, শ্রী এ সি রায় ০১.০১.১৯৪২ – ০১.০১.১৯৪৩, এরশাদ হোসেন ০১.০১.১৯৪৪ – ০১.০১.১৯৪৫, এ. এ. জি মহি ০১.০১.১৯৪৫ – ০১.১২.১৯৪৫, সুলতান আহমদ ০১.১২.১৯৪৫ – ০১.০১.১৯৪৬, এম. এইচ শাহ ২১.১২.১৯৪৬ – ১১.০৪.১৯৫০, আজিজুল্লাহ হাসান ১৯.০৪.১৯৫০ – ১৬.০৯.১৯৫১, মতিন উদ্দিন আহমেদ ২৪.০৩.১৯৫২ – ১৫.১২.১৯৫২, এ. এফ রহমান ০৮.০৩.১৯৫৩ – ২০.১১.১৯৫৪, বোরহান উদ্দিন আহমেদ ২৪.১২.১৯৫৪ – ১৬.১২.১৯৫৫, বাহউদ্দিন আহমেদ ০১.০২.১৯৫৬ – ০৪.০৩.১৯৫৭, আতিকুর রেজা চৌধুরী ০৭.০৭.১৯৫৭ – ০৭.১২.১৯৫৭, এ.এন.এম সামছুল আলম ০৮.১২.১৯৫৭ – ২৭.১২.১৯৫৮, এ. মোমিন ২৮.১১.১৯৫৮ – ০৫.০৮.১৯৬১, এ.কে.এন সিদ্দিক উল্লাহ ০৫.০৮.১৯৬১ – ১৭.০৫.১৯৬৩, এন নুরুল আমিন খান ১১.০৬.১৯৬৩ – ০৬.০৬.১৯৬৪, এম রুস্তম আলী ০৬.০৬.১৯৬৪ – ১১.০৩.১৯৬৫, এম সাঈদ উদ্দিন ২৭.০৩.১৯৬৫ – ২০.০৪.১৯৬৬, মাহাবুব উদ্দিন আহমেদ ২১.০৪.১৯৬৬ – ২৩.১০.১৯৬৭, সফিউর রহমান নভেম্বর ১৯৬৯ – ৩১.০৩.১৯৭০, সিকান্দার হায়াত জামালি ১৮.০৪.১৯৭০ – ০৭.০৭.১৯৭০, খালিদ মেহমুদ আহমদ ১৪.০৭.১৯৭০ – ১৮.০৪.১৯৭১, এম শাহাজান আলী ২৪.০৫.১৯৭১ – ১৮.০৪.১৯৭২, আমিনুর রহমান ১৮.০৪.১৯৭২ – ০৪.০৫.১৯৭৩, একিউএম কামরুল হুদা ০৬.০৫.১৯৭৩ – ২৩.০২.১৯৭৪, মোহাম্মাদ শহীদুল আলম ২৩.০২.১৯৭৪ – ১৪.০৬.১৯৭৫, এম সাইফুল ইসলাম ১৪.০৬.১৯৭৫ – ১৬.০৩.১৯৭৬, আলাউর রহমান চৌধুরী ১৬.০৩.১৯৭৬ – ১৬.০১.১৯৭৮, আব্দুল কাইউম ঠাকুর ২০.০১.১৯৭৮ – ০৮.০৩.১৯৮০, এম এন নবী ০৫.০৭.১৯৮০ – ২১.০১.১৯৮২, মোহাম্মাদ সাইফুজ্জামান ৩০.০১.১৯৮২ – ১৯.১২.১৯৮২, মোহাম্মদ আবুল ফজল ২০.১২.১৯৮২ – ১০.০৪.১৯৮৩, এম এ শকুর ১০.০৪.১৯৮৩ – ২৪.০২.১৯৮৪।
১৯৫৯ সালের ১৮ নং প্রেন্সিডেন্সী আদেশ বলে জেলা বোর্ডের নামকরণ জেলা কাউন্সিল করা হয়েছিল। ১৯৭২ সালে নবগঠিত বাংলাদেশের প্রেন্সিডেন্টের আদেশ বলে মৌলিক গণতন্ত্র ব্যবস্থা বাতিল করা হয়েছিল। আর এই অধ্যাদেশে জেলা বোর্ডের নামকরণ করা হয় জেলা পরিষদ। সে সময় প্রথম চেয়ারম্যান হিসেবে শেখ মুহম্মাদ আবুল হোসেন এমপি ১২.১০.১৯৮৮ – ১০.১২.১৯৯০) দায়িত্ব পালন করেছিলেন । অত:পর চেয়াম্যান এর পরিবর্তে জেলা প্রশাসক হিসেবে মো: কাতেবুর রহমান ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হিসেবে (১০.১২.১৯৯০ – ১৭.০৮.১৯৯২) দায়িত্ব পালন করেছিলেন। তারপর কোন নির্বাচন না হওয়ায় জেলা পরিষদের প্রশাসকের পদটি শূন্য হয়েছিল। আর জেলা পরিষদের সকল কাজ নির্বাহী কর্মকর্তা পালন করেছিলেন। আরও অনেক পরে ২০০৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামীলীগ সরকার গঠনের পর সারা দেশে তিনটি জেলা বাদে বাকি জেলা গুলোতে একজন করে জেলা পরিষদ প্রশাসক নিয়োগ করেছিল। সে সময় সরকার মনোনিত হয়ে ২০.১২.২০১১ থেকে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সাতক্ষীরা জেলা শাখার সভাপতি মুনসুর আহমেদ ২৭.১১.২০১৬ সাল পর্যন্ত জেলা পরিষদের প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। ১৯৮৪ সালের ২৫ শে ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণ এর ফলে মহাকুমা থেকে জেলা ঘোষণা করা হয়েছিল। আর সে সময় থেকে যে সকল জেলা প্রশাসকরা সাতক্ষীরা উন্নয়নের পথপ্রদর্শক হিসেবে কাজ করেছিল। তারা হলেন- আমিনুর রহমান ২৫.০২.১৯৮৪ – ০৪.০৬.১৯৮৫, খন্দকার শহিদুল ইসলাম ০৫.০৬.১৯৮৫ – ২৫.০৭.১৯৮৭, ভূইয়া রফিউদ্দিন আহমদ ২৬.০৭.১৯৮৭ – ০৭.০৭.১৯৯০, মো: কাতেবুর রহমান ০৮.০৭.১৯৯০ – ১৭.০৮.১৯৯২, মো: মুজিবুর রহমান ১৮.০৮.১৯৯২ – ০৪.০১.১৯৯৫, মুহাম্মদ আব্দুস সালাম ১৯.০১.১৯৯৫ – ০৭.০৯.১৯৯৭, দেবদত্ত খীসা ০৮.০৯.১৯৯৭ – ১১.০৮.১৯৯৮, সাইফুল আলম ১২.০৮.১৯৯৮ – ৩১.০৩.২০০০, মো: আব্দুল মতিন চৌধুরী ০১.০৪.২০০০ – ১২.০১.২০০৩, এ ওয়াই এম একরামুল হক ১২.০১.২০০৩ – ১৯.০৭.২০০৪, মো: ইলিয়াস ১৯.০৭.২০০৪ – ১১.০৯.২০০৬, এবিএম সিরাজুল হক ২৬.০৯.২০০৬ – ১৯.১১.২০০৬, মো: কেফায়েতউল্লাহ ১৯.১১.২০০৬ – ৩১.০৮.২০০৮, মো: মিজানুর রহমান ৩১.০৮.২০০৮ – ২০.০৪.২০০৯, মো: আব্দুস সামাদ ২০.০৪.২০০৯ – ০৪.০২.২০১২, ড. মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার ০৪.০২.২০১২ – ২৪.১২.২০১৩, নাজমুল আহসান ২৫.১২.২০১৩ – ২৬.০১.২০১৬, আবুল কাশেম মো: মহিউদ্দিন ২৬.০১.২০১৬ চলমান দায়িত্ব পালন করে, খুলনা বিভাগের মধ্যে শ্রেষ্ঠ জেলা প্রশাসক হয়ে সাতক্ষীরার উন্নয়নে তাঁর অবদানকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। আর তিনি যতদিন সাতক্ষীরাতে আছেন ততদিন কোন বিরুদ্ধ শক্তি চলমান উন্নয়নকে বাঁধাগ্রস্ত করতে পারবে না। আর তিনি এ জেলা থেকে অন্য জেলায় চলে গেলেও সাতক্ষীরা বাসীর কাছে একজন সক্রিয় জেলা প্রশাসক হিসেবে স্মরণিয় হয়ে থাকবেন।

তথ্যসূত্র ও সহয়তা:
০৯.০৩.২০১৭ তারিখ বৃহস্পতিবার সকাল ১০: ১৩ মিনিটে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক আবুল কাশেম মো: মহিউদ্দিন সাতক্ষীরা কালেক্টর ভবনের নিজ অফিসে বসে সাতক্ষীরা মহাকুমা প্রশাসকের তথ্যকথা লিখতে মতবিনিময় করেছিলেন।
০৯.০৩.২০১৭ তারিখ বৃহস্পতিবার বিকাল ০৩: ৫২ মিনিটে সাতক্ষীরা কেন্দ্রিয় পাবলিক লাইব্রেরির সভা কক্ষে লাইব্রেরিয়ান সৈয়দ আনিসুর রহমান সাতক্ষীরা মহাকুমা প্রশাসকের তথ্যকথা লিখতে মতবিনিময় ও ¯্রােত বইটি দিয়েছিলেন। আব্দুল হামিদ সম্পাদিত সাতক্ষীরা কেন্দ্রিয় পাবলিক লাইব্রেরির প্রকাশনা থেকে ৩৭ ও ৪২ পৃষ্ঠার তথ্যাদি সংগৃহীত।

১১.০৩.২০১৭ তারিখ শনিবার সকাল ১১:১৫ মিনিটে এলিট স্টুডিও এর কক্ষে বসে মো: আহছানউল্লাহ সাতক্ষীরা মহাকুমা প্রশাসকের তথ্যকথা লিখতে মতবিনিময় করেছিলেন। সে সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন আতিকউল্লাহ চন্দন, রনক বাসার।

১১.০৩.২০১৭ তারিখ শনিবার সকাল ১১.৫২ মিনিটে দৈনিক আজকের সাতক্ষীরা অফিসে সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের সাবেক উপাধ্যক্ষ নিমাই চন্দ্র মন্ডল সাতক্ষীরা মহাকুমা প্রশাসকের তথ্যকথা লিখতে মতবিনিময় করেছিলেন। সে সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন দৈনিক আজকের সাতক্ষীরার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক হাফিজুর রহমানন মাছুম, আসাদুজ্জামান, শরিফুল ইসলাম সহ নাম না জানা আরও কয়েকজন প্রতিনিধি।

১১.০৩.২০১৭ তারিখ শনিবার ০৩:৪৮ মিনিটে জেলা গণ-গ্রন্থাগার এর লাইব্রেরিয়ান কিনারাম নাথ সাতক্ষীরা মহাকুমা প্রশাসকের তথ্যকথা লিখতে মতবিনিময় করেন। এবং লাইব্রেরিয়ান আবুল হোসেন সম্পাদিত সাতক্ষীরা জেলার ইতিহাস বইটি দিয়েছিলেন। সে সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন মোবাশ্বের, নীলু।

১২.০৩.২০১৭ তারিখ রোববার সকাল ১১: ২৭ মিনিটে সাতক্ষীরা তথ্য অফিস কক্ষে মো: মনিরুজ্জামান ও মীর আজিবুর রহমান সাতক্ষীরা মহাকুমা প্রশাসকের তথ্যকথা লিখতে মতবিনিময় করেছিলেন। সে সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন সাতক্ষীরা তথ্য অফিসের স্টাফ শেখ মুনছুরুল হক, মো: বাসারুল হক, মাহফুজা খাতুন।

১৩.০৩.২০১৭ তারিখ সোমবার সকাল ১০: ১৭ মিনিটে সাতক্ষীরা তথ্য অফিস কক্ষে তথ্য অফিসার শাহনেওয়াজ করিম সাতক্ষীরা মহাকুমা প্রশাসকের তথ্যকথা লিখতে মতবিনিময় করেছিলেন। সে সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন সাতক্ষীরা তথ্য অফিসের কম্পিউটার অপারেটর মো: জাহাঙ্গীর আলম।

১৩.০৩.২০১৭ তারিখ সোমবার সকাল ১১: ২২ মিনিটে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের কক্ষে শাহানা পারভীন সাতক্ষীরা মহাকুমা প্রশাসকের তথ্যকথা লিখতে মতবিনিময় করেছিলেন। সে সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন মো: আল মামুন, ওমর ফারুক।

লেখক: মুনসুর রহমান, সহ-সভাপতি, সাতক্ষীরা অনলাইন প্রেসক্লাব,সাতক্ষীরা।

LEAVE A REPLY