সাতক্ষীরায় কুচক্রি মহলের মিথ্যে হয়রানি থেকে রক্ষা পেতে এক আ’লীগ নেতার সংবাদ সম্মেলন

0
252

শহর প্রতিনিধি:
সাতক্ষীরায় অবৈধভাবে জমি দখলে ব্যর্থ হয়ে ও চাঁদার টাকা না পেয়ে পত্রিকায় মিথ্যে সংবাদ প্রকাশ করিয়ে এক আওয়ামী লীগ নেতাকে হয়রানি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন, সদর উপজেলার তেতুলতলা গ্রামের মৃত রজব আলী সরদারের ছেলে মোঃ ওবায়দুল হোসেন ওরফে মানি।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, দীর্ঘদিন ধরে তিনি সুনামের সাথে সদর উপজেলার ৫নং শিবপুর ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে আসছেন। কিন্তু একটি কুচক্রি মহল এলাকার মৃত বেল্লালের ছেলে ইউনুচ আলী ওরফে চিটার ইউনুচ ও আবু বাক্করের ছেলে রেজাউল ওরফে গোল্ডেন রেজাউল তাকে সামাজিক ভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। ইউনুচ আলী তার ছেলে পলাশ ও জনৈক সেলিমকে দিয়ে গত ৯ সেপ্টেম্বর বিভিন্ন পত্রিকায় আমাকে ও আজাহারুল মেম্বর এবং ইউনিয়ন আ’লীগের সিনিয়র ভাইচ প্রেসিডেন্টকে জড়িয়ে পত্রিকায় একটি মিথ্যে সংবাদ প্রকাশ করিয়েছে। সংবাদে বলা হয়েছে আমি নাকি ৪০টি সরকারি গাছ কেটে নিয়েছি। প্রকৃত পক্ষে ওই গাছের মালিক এলাকার মৃত আশিকুজ্জামানের ছেলে আখতারুজ্জামান জুজু। তার বাড়ির প্রাচীর ও মাছের ঘেরের সমস্যার কারণে সে নিজেই ওই গাছ গুলো কেটে নিয়েছেন।
তিনি অভিযোগ করে বলেন, ইউনুচ দীর্ঘদিন ধরে জুজুর সম্পত্তি দখলের পায়তার করে আসছে। এ ঘটনায় জুজু সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেছে। এছাড়া জুজুর জমির পাশে ইউনুচের যে জমি রয়েছে তা বিক্রির জন্য ইউনুচ এক লাখ ২০ হাজার টাকা গ্রহণ করে। কিন্তু জমি লিখে না দিয়ে সে তালবাহনা শুরু করে। এক পর্যায় টাকা ফেরত চাইলে ইউনুচ তার ছেলে পলাশের সাথে গণমাধ্যমের উপর মহলে যোগাযোগ রয়েছে ভয় দেখিয়ে বাড়াবাড়ি করলে তাদের দিয়ে পত্রিকায় মিথ্যে সংবাদ প্রকাশ করিয়ে ফাঁসিয়ে দেয়ার হুমকি দেয়। উক্ত জমি দখল করতে না পেরে এবং জুজুর টাকা ফেরত না দেয়ার কৌশল হিসাবে ইউনুচ তার ছেলে পলাশকে দিয়ে পত্রিকায় এরুপ মিথ্যে সংবাদ প্রকাশ করিয়েছে। ইউনুচ তার ছেলে পলাশকে দিয়ে নিজের শশুরকে পুলিশে ধরিয়ে দিয়ে এক লাখ ৬০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। বাড়ি বিক্রির জন্য নিজের ছোট ভাই রফিকুলের কাছ থেকে টাকা নিয়ে আগে ছেলে পলাশের নামে লিখে দেয়। পরে জালিয়াতির মাধ্যমে রফিকুলের নামে লিখে দেয়। ইউনুচ ও তার ছেলে পলাশ এলাকায় নিরীহ মানুষকে পুলিশে ধরিয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করে চলেছে। এছাড়া এমপি’র নাম ভাঙ্গিয়ে চাকুরি দেয়া ও ব্যাংক থেকে লোন পাইয়ে দেয়ার নাম করে তারা এলাকার বহু নিরীহ মানুষের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।
তিনি বলেন, রেজাউল ও ইউনুচ এক সঙ্গে হয়ে এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করেছে। ধারনা করছি তারা দু’জন মিলে আমাকেও আমার ভাই মৃত রবিউলের মত পরিনতি করতে পারে। তিনি ইউনুচ ও তার ছেলে পলাশ এবং রেজাউলের হাত থেকে রক্ষা পেতে এবং তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট কৃর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

নাজমুল হাসান

LEAVE A REPLY