শুভ হোক নতুন বছর

0
57
বরুণ ব্যানার্জী:
পৌষের হাড় কাঁপানো কনকনে শীতের মাঝে উত্তাপ নিয়ে এসেছে ইংরেজি নতুন বছর।  আমরা সময়কে মুহূর্তে ভাগ করি, দিনে ভাগ করি, ঘণ্টায় ভাগ করি, মিনিটে ভাগ করি, সেকেন্ডে ভাগ করি- এভাবে নানা ভাগে ভাগ করি। নতুন বছরে বিরাট পরিবর্তন সাধিত হবে, এমনটা ভাবার কোনো কারণ নেই। গত দিনটিতে যা হয়েছে, আজকের দিনে তার থেকে খুব আলাদা কিছু হবে বলে মনে হয় না। আবার আমাদের সময় যখন শেষ হয়ে যাবে, তখন আমরা সবাই মাটির নিচে চলে যাব। সে জন্য সময় নিয়ে হাহাকার করারও কিছু নেই, সময় নিয়ে উল্লাস করারও কিছু নেই। কিন্তু আমাদের মানুষের স্বভাব হচ্ছে, আমরা সময়কে মাপি এবং বলি- Time and tide wait for none, সময় এবং স্রোত কারও জন্য অপেক্ষা করে না।
আজ পহেলা জানুয়ারি, বছরের প্রথম দিন। বিশ্বের অনেক দেশই এখন এই দিনটিকে উদযাপন করে। যতদূর পারা যায়, তারা এই দিনকে উপভোগ করে। আর স্মৃতিচারণ করতে থাকে। যে বর্ষ চলে গেল, সেই বর্ষের কথা ভাবে আর নতুন বছরের শুভেচ্ছা পরস্পরকে বিনিময় করে। কয়েক বছর ধরে ইংরেজি নববর্ষের প্রথম দিনটা ১ জানুয়ারি পালন করা হচ্ছে পাঠ্যপুস্তক উৎসব দিবস হিসেবে। স্কুলের শিক্ষার্থীরা নতুন বইয়ের গন্ধ নেয়ার জন্য অধীর অপেক্ষায় থাকে আজকের দিনটির জন্য। আজও নতুন বইয়ের জন্য স্কুলে স্কুলে ভিড় করেছে শিক্ষার্থীরা।  নতুন বইয়ের ঘ্রাণে তাদের আনন্দ উচ্ছ্বাস আরও বেড়ে গেছে।
অর্থনৈতিকভাবে নানা সুখবরের মধ্যেই বিদায়ী বছর ছিল বাংলাদেশে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার বছর। রাজধানীর গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্তোরায় হামলায় ২৫ জন নিহতের ঘটনায় বাংলাদেশ যেমন স্তব্ধ হয়েছিল তেমনি নাড়া দিয়েছিল বিশ্ববাসীকেও। এছাড়াও কুমিল্লার তনু, হিন্দু সাধু পরমানন্দ রায়, গাজীপুরের কাশিমপুরে প্রধান কারারক্ষী, কলাবাগানে জুলহাজ মান্নান ও তনয়, বাবুল আক্তারের স্ত্রী মিতু হত্যাকাণ্ড দেশের অনেক অর্জনকে ম্লান করে দিয়েছে। আর কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে হ্যাকিং করে টাকা লোপাটের ঘটনাও অর্থমন্ত্রীর দায়িত্বকে করেছে প্রশ্নবিদ্ধ। এক সময় তলাবিহীন ঝুড়ি হিসেবে পরিচিত বাংলাদেশ বছরের পর বছর লড়াই করে এখন উচ্চ মধ্য আয়ের কাতারভুক্ত হওয়ার স্বপ্ন দেখছে। পদ্মাপাড়ে চলছে দেশের বৃহত্তম সেতু নির্মাণের সুবিশাল কর্মযজ্ঞ। রাজধানীতে শুরু হয়েছে মেট্রো রেলের কাজ। চট্টগ্রামে কর্ণফুলী টানেল হচ্ছে। রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র হচ্ছে।  আমাদের লক্ষ্য, আমরা দৃঢ় প্রতিজ্ঞ চিত্তে এগিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন নিয়ে রাষ্ট্রে  নিশ্চিন্ত, নির্বিঘ্ন, দারিদ্র্য পীড়িত নয় এমন একটা বছর দেশের প্রত্যেক নাগরিকের জন্য কাম্য। আর জীবনানন্দের কথাটিই শেষ কথা হিসেবে বলতে চাই। পৃথিবীর এই গভীরতর অসুখের বার্তাবরণ থেকে আমরা পৃথিবীকে রক্ষা করব, একে সুন্দর আনন্দময় করব। নতুন বছরে এই হোক আমাদের চাওয়া। সবার জন্য শুভকামনা।

LEAVE A REPLY