রাসমেলাকে ঘিরে বন্ধ হোক হরিণ শিকার

0
141

বরুণ ব্যনার্জী :
প্রতি বছরের মতো এবারো সুন্দরবন বাগেরহাট রেজ্ঞে দুবলারচরে আলোরকোলে শনিবার শুরু হয়েছে রাসমেলা। ১৪ নভেম্বর সকালে পূণ্যস্নানের মধ্য দিয়ে শেষ হবে ঐতিহ্যবাহী এ উৎসব। প্রতি বছরই লক্ষ লক্ষ পুণ্যার্থী ও দর্শনার্থীর আগমন ঘটে মেলাকে কেন্দ্র করে। এ বছর ১৩৩ তম উৎসব হিসেবে অনুষ্ঠিত হচ্ছে রাসমেলা। পুণ্যার্থীরা খাদ্য ও ফলাহার নিয়ে পূজা অর্চনা করেন। রাতের শেষ প্রহরে খাদ্য ও ফলাহার জোয়ারের পানিতে ভেসে না যাওয়া পর্যন্ত এই আরাধনা চলতে থাকে। এই আরাধনাকে ঘিরেই এই রাসমেলার আয়োজন। ১৯২৩ সালে সাধক হরিভজনের প্রচেষ্টায় শুরু হওয়া এই মেলা সুন্দরবনের সাথে তাল মিলিয়ে তার ঐতিহ্য হারায়নি।
পর্যটকরা লঞ্চ ও স্পিডবোট বুকিং নিতে প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন। এদিকে, রাসমেলাকে কেন্দ্র করে সুন্দরবনে প্রতি বছরই তৎপরতা বাড়ে হরিণ শিকারের। যদিও সুন্দরবনে আসা সনাতন ধর্মাবলম্বী ও পর্যটকদের নিরাপত্তায় বনবিভাগের পাশাপাশি পুলিশ, কোস্টগার্ড ও র‌্যাবের টহল জোরদার রয়েছে। হরিণ শিকার বন্ধে নেওয়া হয়েছে বাড়তি কড়াকড়ি। শত বছরের ঐতিহ্য এ মেলাকে ঘিরে হরিণ শিকারীদের অপতৎপরতা বন্ধ হোক।

LEAVE A REPLY