রবিউল পরিবারকে সহায়তা করবেন জেলা প্রশাসক

209
1363

স্টাফ রিপোর্টার :
শ্রমজীবী রবিউল ইসলাম (৩০)। সাতক্ষীরার কালিগজ্ঞ উপজেলার বালাকাটি গ্রামের শোকর আলী গাজীর ছেলে। বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ণ ইউনিটের ৫২৫ নাম্বার রুমের ২২ নাম্বার বেডে চিকিৎসাধীন। বাবা শোকর আলী গাজীর থাকা সর্বস্ব ১৫ কাটা জমি বিক্রিও করে ফেলেছেন ছেলের চিকিৎসার জন্য। প্রতিদিন রবিউলের জন্য ওষধ কিনতে হচ্ছে সাড়ে ৩ হাজার টাকার। মাথায় অপারেশন করতে হবে তার জন্য ব্যায় হবে ১২ হাজার টাকা। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন রবিউলকে এখনো প্রায় এক মাস এখানে থাকতে হবে সেখানে।
নিজের থাকা সর্বস্ব শেষ করে পরিবারটি যখন দ্বারে দ্বারে ঘুরছে তখন “টাকার অভাবে ওষধ কিনতে পারছে না রবিউলের পরিবার” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়।
রবিউলের মা রোকেয়া বেগম রবিবার সাংবাদকর্মী আকরামুল ইসলামকে জানান, এ পর্যন্ত একদিনের ওষধ কেনার অর্থও হয়নি। অনেকের কাছে বলেও কোন সহায়তা পায়নি। বিষয়টি জেলা প্রশাসক আবুল কাশেম মোঃ মহিউদ্দীনকে অবহিত করলে তিনি সহায়তা করবেন বলে জানান।
অবশেষে রবিউলের অসহায় বাবা-মাকে নিয়ে মঙ্গলবার দুপুরে জেলা প্রশাসকের কাছে আর্থিক সহায়তার একটি লিখিত আবেদন দেওয়া হয়েছে। এ সময় জেলা প্রশাসক বলেন, রবিউলের চিকিৎসার বিষয়টি তিনি দেখবেন ও আর্থিক সহায়তা করবেন।

robiul
এর আগে ১০ সেপ্টেম্বর কালিগজ্ঞের চৌমহোনী মোড় এলাকায় কাজ করার সময় বৈদ্যুতিক তারে জড়িয়ে পড়ে রবিউল। এ সময় তার সমস্ত শরীর ঝলসে যায়। কালিগজ্ঞ হাসপাতাল থেকে সাতক্ষীরার সদর হাসপাতাল সেখান থেকে খুলনা মেডিকেল কলেজ তারপর নিয়ে যাওয়া হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউনিটে।
রবিউলের বাবা শোকর আলী গাজী বলেন, প্রতিদিন সাড়ে ৩ হাজার টাকা করে ওষধ কিনতে হচ্ছে। ডাক্তার বলেছেন, এখনো এক মাস থাকতে হবে। মাথায় অপারেশন করতে হবে ১২ হাজার টাকা লাগবে বলে ডাক্তার জানিয়েছেন। সব মিলিয়ে এখনো এক লাখ ১৭ হাজার টাকা প্রয়োজন। আমার সবকিছুই শেষ করে ফেলেছি ছেলের চিকিৎসার পেছনে। সহায়তার জন্য একটি ব্যাংক একাউন্ট খোলা হয়েছে হিসাব নম্বর-১৫৯১৬। মোবাইল বিকাশ নম্বর ০১৯৬০০৩৭৯৬৫। মোবাইল কলের মাধ্যমে সবশেষ অবস্থা জানতে পারবেন ০১৭২৭০১৩৭৯৭।

209 COMMENTS