যে সেলফি নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় হৈচৈ

57
1676

হায়রে সেলফি।হায়রে মানুষ। হায়রে শখ। কথায় বলে শখের তোলা আশি টাকা। তাই বলে সবকিছু সব জায়গায় চলেনা। এমন দৃশ্য এই আজব দেশেই মানায়? কোথায় আইন রক্ষকরা ব্যবস্থা নিন। তাদের আটক করুন। এমনও দাবী উঠেছে বিভিন্ন মহল থেকে। জবাই করা কুরবানির গরুর ওপর উঠে ছবি তোলায় সামাজিক মাধ্যমে হৈচৈ পড়েছে। শুরু হয়েছে তোলকালাম। এমন উদ্ভট আচরণে সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীরা লজ্জিত, অবাক এবং মর্মাহত বলে মন্তব্য করেছেন।
সবচেযে বেশি দুঃখ প্রকাশ করা হয়েছে একটি গরুকে পাঁচবার জবাই করায়। অথচ শুধু কুরবানির পশুই নয়, যে কোনো পশু জবাইয়ের আগে অস্ত্রটি ধারালো কিনা তা পরীক্ষা করে নেয়া উচিত।কিন্থু ওই চক্রটি তা করেনি।
কুরবানির পশু গরু জবাইয়ের পর তার ওপর বসে ছবি তুলে ফেসবুকে প্রকাশ করায় কয়েকটি ছবি ভাইরাল হয়েছে। তবে এসব ছবির মধ্যে দুটি ছবি নিয়ে আলোচনা বেশি হয়েছে। ছবি দুটি নিয়ে অনেকের মতো সাদমান সাবি লিখেছেন, ওরা মানুষ নয়, ওরা জানোয়ার তুল্য। ওদের বিরুদ্ধে সরকার ব্যবস্থ নিক। ধিক নরপশুরা ধিক!!
মিম আফরোজা নামের একজন ফেসবুকে লিখেছেন, অমানুষের বাচ্চাদের কাণ্ডজ্ঞান দেখুন। নিথর অবলার গায়ে একপাল পশুই সাক্ষ্য দিচ্ছে, পশুত্বের কুরবানি হয়নি।
মনিরুল ইসলাম লিখেছেন, ‘কিছু না লিখে পারলাম না। আসলে ওরা জানে না কুরবানি মানে কি? এই ছবিই বলে দেবে এরা কি কুরবানির নিয়তে গরু জবাই করছে না গোস্ত খাবার ধান্দায় মাতাল হয়ে আছে। আল্লাহু তুমি এই নির্বোধদের জ্ঞান দাও।’
জগলুল হোসেন লিখেছেন, ‘একবার চিন্তাও করল না যে কি করছি। আসলে কুরবানি দেওয়ার জন্য নয়, এটা করার জন্যই বোবা প্রাণিটাকে হত্যা করা হয়েছে মাত্র।’
রায়হান বাবু লিখেছেন, ‘বিবেক হচ্ছে আল্লাহ প্রদত্ত। যার বিবেকই নাই, তার তো কুরবানির দরকার নাই। এই সব অমানুষদের আসলে কি করা উচিত তাই ভেবে পাচ্ছি না। শয়তানের বংশধর।’
সাঈদ আনাম লিখেছেন, ‘ওরা গরু নিয়ে সময় কাটাতে গিয়ে নিজেদের মাঝে পশুর চরিত্র আপলোড হয়ে গেছে। মাইন্ড কইরেন না।’
ত্যাগ ও ইবাদত কবুলের ঈদ হলো ঈদুল আজহা। ত্যাগের মহিমায় মুসলমানদের তাকওয়ার পরিচয় দিতেই পশু জবাই করা হয়। কুরআন এবং হাদিসে বলা হয়েছে, মহান আল্লাহর কাছে কুরবানির পশুর রক্ত, মাংস কিছুই পৌঁছে না। পৌঁছে শুধু নিয়্ত এবং তাকওয়া।
জিলহজ মাসের ১০ তারিখ ঈদুল আজহা উদযাপিত হলেও পরের দুদিন অর্থাৎ ১১ ও ১২ জিলহজও পশু কুরবানির বিধান রয়েছে। রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে অনেকে ওই দুদিনও পশু কুরবানি করে থাকেন।
কুরবানির মধ্য দিয়ে নিজের ভেতরের পশুত্বকে পরিহার করা ও হজরত ইব্রাহিম (আ.)-এর মহান আত্মত্যাগের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে মঙ্গলবার সকালে মুসল্লিরা ঈদুল আজহার দুই রাকাত ওয়াজিব নামাজ আদায় করেছেন।
কিন্তু কুরবানির ঈদের এই দিনে পশু জবাই করার পর এবং জবাই করার সময় পশুকে কে কষ্ট দেওয়া হয়েছে মহান আল্লাহ ক্ষমা করবেন কিনা তিনিই ভালো জানেন। এসব বিষয়ে সোশ্যাল মিডিয়াতে এমন ছবি আপলোড করা ন্যক্কারজনক।
এ ব্যাপারে পুলিশের একজন কর্তা বলেছেন, বিষয়টি দু:খজনক। এ ব্যাপারে হয়ত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

57 COMMENTS

  1. I simply wanted to type a quick note to express gratitude to you for all of the marvelous guidelines you are showing here. My time consuming internet look up has finally been recognized with really good facts to share with my contacts. I would believe that we website visitors actually are unequivocally lucky to dwell in a decent website with so many awesome professionals with great hints. I feel really blessed to have come across your web page and look forward to some more fun minutes reading here. Thanks once again for everything.

  2. I have come across that today, more and more people are being attracted to cams and the discipline of images. However, as a photographer, you will need to first devote so much time frame deciding which model of video camera to buy in addition to moving store to store just so you could buy the least expensive camera of the brand you have decided to choose. But it isn’t going to end now there. You also have to consider whether you can purchase a digital video camera extended warranty. Thanks alot : ) for the good suggestions I gained from your blog site.

  3. Definitely believe that which you said. Your favorite justification appeared to be on the internet the simplest thing to be aware of. I say to you, I definitely get irked while people consider worries that they just do not know about. You managed to hit the nail upon the top and defined out the whole thing without having side effect , people can take a signal. Will probably be back to get more. Thanks

  4. Hi there. Merely desired to inquire a fast dilemma. I am just arranging my personal weblog along with wish to learn wherever you got ones theme? Had been it totally free? As well as has been it paid for? I cannot apparently come across something as well as this one, therefore ideally it is possible to let me realize. Many thanks. PS, my i’m sorry. The english language just isn’t my personal first dialect.

  5. I precisely had to thank you very much all over again. I am not sure what I would have achieved in the absence of the pointers documented by you about this problem. Completely was a very frightful difficulty for me, nevertheless taking a look at the very well-written way you processed that took me to cry over joy. I’m happy for the information and even believe you are aware of a powerful job that you are accomplishing educating others through the use of your web site. I am certain you’ve never got to know all of us.