‘যে কারণে আত্মহত্যা করলো শ্যামনগরের কলেজ ছাত্রী’

10
146
বিশেষ প্রতিনিধি:
সাতক্ষীরার শ্যামনগরে কলেজ থেকে বাড়ি ফেরার পথে বখাটেদের হাতে লাঞ্ছনার শিকার হয়ে এক কলেজ ছাত্রী আত্মহত্যা করেছে। কলেজ ছাত্রীর নাম জয়শ্রী চক্রবর্তী (১৭)। সে শ্যামনগর উপজেলার নওয়াবেঁকী মহাবিদ্যালয়ের একাদশ শ্রেণীর ছাত্রী ও বয়ারসিং গ্রামের মাখন চক্রবর্তীর মেয়ে।
বুধবার শ্যামনগরের বয়ারসিং গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর শুক্রবার নিহত কিশোরীর বাবা মাখন চক্রবর্তী বাদী হয়ে বখাটে শেখর মন্ডলসহ তাঁর তিন-চারজন সহযোগীর বিরুদ্ধে শ্যামনগর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।
নিহতর ভাই কাজল চক্রবর্তী জানান, জয়শ্রী উপজেলার নওয়াবেঁকী মহাবিদ্যালয়ের একাদশ শ্রেণিতে পড়ত। কলেজে যাতায়াতের পথে পাশের বড়কুপোট গ্রামের শেখর মন্ডল প্রায়ই তাকে উত্ত্যক্ত করতেন।
ঘটনার দিন জয়শ্রী বাড়ি ফেরার পথে নওয়াবেঁকীর বাঁশের হাটের সামনের রাস্তায় শেখর তিন-চারজন সঙ্গী নিয়ে তার পথ রোধ করেন। এ সময় তাঁরা তাঁর বোনকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেন ও কাঁচি দিয়ে মাথার চুল ও ওড়না কেটে দেন। এ সময় জয়শ্রীর চিৎকারে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এলে শেখর সহযোগীদের নিয়ে পালিয়ে যান। বাড়িতে ফিরে জয়শ্রী ঘরের মধ্যে ঢুকে কান্নাকাটি করতে থাকে। কারণ জানতে চাইলে পথে সে শেখর মন্ডলসহ তাঁর বন্ধুদের হাতে হেনস্থার ঘটনা খুলে বলে।
নিহতের বাবা মাখন মন্ডল বলেন, আগামী মাসেই মেয়ের বিয়ের দিন ধার্য ছিল। তাই বিষয়টি তাঁরা চেপে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন। কিন্তু সন্ধ্যার পর জয়শ্রী ঠাকুরঘরের আড়ার সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। উদ্ধার করে প্রথমে শ্যামনগর ও পরে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।
এ ব্যাপারে শ্যামনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সৈয়দ মান্নান আলী জানান, ঘটনাটি ২৫ অক্টোবর হলেও ২৭ অক্টোবর তাঁদের জানানো হয়েছে। জয়শ্রীর পরিবার দেরিতে জানানোর সুযোগে আসামিরা পালিয়ে আছে। ইতিমধ্যে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শনসহ প্রত্যক্ষদর্শী ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলে বখাটেদের ধরতে তৎপরতা চালাচ্ছে।
দৈনিক সাতক্ষীরা/জেড এইচ

10 COMMENTS