‘মজার স্কুলে’র গল্প

0
132

অনলাইন ডেস্ক :

পরনে নেই বসন। ছিন্নমূল তাদের বাসস্থান। দুবেলা যেখানে খাবার জোটে না, সেখানে শিক্ষার আলো পাওয়া তাদের কাছে অলীক স্বপ্নই। তবুও তারা ভাসতে চায় জ্ঞানের স্রোতে। ঠাঁই খোঁজে জ্ঞানালোকের আস্তানায়। ওদের পরিচয়, ওরা সুবিধাবঞ্চিত শিশু। তাদের এই চোখভরা স্বপ্নকে রাঙিয়ে দিতেই দিনাজপুরের হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে যাত্রা শুরু করেছে মজার স্কুল। স্বেচ্ছাশ্রমের এই স্কুলে শিক্ষার আলোয় বেড়ে উঠছে ১২০ জন সুবিধাবঞ্চিত শিশু। এই চিত্রটি একটি স্কুলের। তবে এর নাম, মজার স্কুল। সে কারণেই আর দশটা স্কুল থেকে এর রকম সকম কিছুটা আলাদা। সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য এই স্কুলটি চালাচ্ছে দিনাজপুরের হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক দল শিক্ষার্থী। নিজেদের পড়ালেখার পাশাপাশি তাদের চেষ্টা সমাজের এই স্তরে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দেয়ার। মজার এই স্কুলটিতে ব্যাপার স্যাপার গুলোও একটু আলাদা। ছিন্নমূল শিশুরা এখানে পড়ালেখা শেখে মনের আনন্দে। আর তাদের জন্য বই, খাতা থেকে শুরু করে নাস্তারও ব্যবস্থা করে স্কুল কর্তৃপক্ষ। স্কুলটি ভালোভাবে চালাতে সবার প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়ার আহ্বান জানালেন স্কুল পরিচালনার কমিটির এক উপদেষ্টা। ২০১৫ সাল থেকে যাত্রা শুরু করে মজার স্কুল। বর্তমানে ১২০ টি শিশু এখান থেকে নিয়মিত পড়ালেখা করছে।

মুন/রহ

LEAVE A REPLY