ভোট ডাকাতি মামলার আসামীদের গ্রেফতার ও সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবি

0
141

এস.এম মফিদুল ইসলাম, পাটকেলঘাটা :
তালা উপজেলার ৪ নং কুমিরা ইউনিয়নে স্থগিত হওয়া ৩ ভোট কেন্দ্রে নির্বাচন কমিশনের ঘোষণা অনুযায়ী আগামী ৩১ অক্টোবর পূনঃভোট গ্রহণে সুষ্ঠু পরিবেশ না থাকা এবং জীবনের নিরাপত্তাহীনতায় আরও দু’ ইউপি আবেদন দাখিল করেছেন।
জানা গেছে, গত ২২ মার্চ নির্বাচনের আগের রাতে ৫০/৬০ জন দূর্বৃত্ত সশস্ত্র অবস্থায় ভোট কেন্দ্রে ঢুকে দায়িত্বরত প্রিসাইডিং অফিসার  সহ সকলকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ব্যালট বই ছিনিয়ে নিয়ে নৌকা প্রতীকে সিল মেরে বাক্র ভরে দেয়। ঐ ঘটনায় পরদিন ৩ কের্ন্দের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা যথাক্রমে আনন্দ মোহন হালদার, আতিয়ার রহমান ও নাহিদ পারভেজ বাদী হয়ে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী শেখ আজিজুল ইসলামকে প্রধান আসামী করে ৪ জনের নাম উল্লেখ সহ অজ্ঞাত ৫০/৬০ জন দূবৃর্ত্তের নামে পৃথক তিনটি মামলা করেন। দীর্ঘদিন পর নির্বাচন কমিশন স্থগিত হওয়া ৯ নং ওয়ার্ডের দাদপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৮ নং ওয়ার্ডের অভয়তলা সরকারী প্রাথঃ বিদ্যাঃ ও ৪ নং ওয়ার্ডের ভাগবাহ সরকারী প্রাথঃ বিদ্যাঃ ভোট কেন্দ্রে আগামী ৩১ অক্টোবর পূনঃভোট গ্রহণে তফসীল ঘোষণা করেন। সংরক্ষিত মহিলা আসনের প্রতিদ্বন্দীতাকারী ২ মেম্বর প্রার্থী ৪, ৫ ও ৬ নং ওয়ার্ডের দুই বার নির্বাচিত হেলিকপ্টার প্রতীকের প্রার্থী রোকসানা পারভীন এবং ৭, ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডের ক্যামেরা প্রতীকের মঞ্জুয়ারা বেগম ভোটের আগের রাতের ঘটনা আবারও ঘটার আশঙ্কায় হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন। এছাড়া সাধারণ ভোটারদের মধ্যে আতঙ্ক-উৎকন্ঠা বিরাজ করছে। বেশ কয়েকজন ভোটারদের সঙ্গে কথা হলে তাদের নাম প্রকাশ করতেও সাহস পাচ্ছেন না। নির্বাচনের দিনক্ষন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই ভোটারদের মধ্যে অজানা আতঙ্ক বিরাজ করছে। এদিকে ৩ চেয়ারম্যান ও ২ মহিলা মেম্বর প্রার্থী স্থগিত হওয়া ৩ কেন্দ্র সহ ইউনিয়নের সবকটি কেন্দ্রে শান্তিপূর্ণ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করার জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।