ভূখন্ড হারাচ্ছে বাংলাদেশ, ব্যবস্থা নেয়া জরুরী

0
76

বরুণ ব্যানার্জী :

সাতক্ষীরার সীমান্ত নদী ইসামতি ভাঙ্গনে চিংড়ি ঘের, বসত ভিটা, কর্মসংস্থান হারিয়ে অসহায় ও বেকার হয়ে পড়ছে মানুষ। দেবহাটার হাড়দহ থেকে কালিগজ্ঞের বসন্তপুর পর্যন্ত ২৫ কিলোমিটারের মধ্যে ১২ কিলোমিটার এলাকাজুড়েই ভাঙ্গন। নামমাত্র কিছু এলাকা সংস্কার হলেও তার কোন সুবিধাই পায়নি এলাকাবাসী। ২০১০ সালের বাংলাদেশ সরকারের সাথে চুক্তি অনুযায়ী নদীর মাঝখান থেকে উভয় দেশে চিহ্নিত সীমানা পর্যন্ত খনন প্রক্রিয়া ভারত সরকারের সম্পন্ন করার কথা। কিন্তু চুক্তি অনুযায়ী ভারত সরকার তাদের অংশে ড্রেজিংয়ের কাজ ২০১১ সালেই সম্পন্ন করে। একই সাথে ভারতীয় অংশে বোল্ডার দিয়ে স্থায়ীভাবে ভাঙ্গন রোধ করে দেয়। বাংলাদেশ অংশে কোন ড্রেজিং ও নদীর পাড়ে ব্লগ বা বোল্ডার দেওয়া হয়নি। ভারতীয় পানির চাপে বর্তমানে বাংলাদেশ অংশের নদী ভাঙ্গন মারাত্নক আকার ধারন করেছে। পলি জমছে বাংলাদেশ অংশে। ইতিপূর্বে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে শিবনগর নামক মৌজাটি। তাছাড়া অসাধু ব্যক্তিরা অবৈধভাবে নদী থেকে বালু উত্তোলন করে নদী ভাঙ্গনকে তরান্বিত করছে। নামমাত্র যে সংস্কার টুকু করা হচ্ছে সেটুকুও ভাঙ্গনস্থানে না দিয়ে নদীর জায়গা ছেড়ে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন ভূখন্ডে সরে এসে করা হচ্ছে। সেখানেও ভূমি হারাচ্ছে বাংলাদেশ। দেশের মানচিত্র রক্ষা, লাখো মানুষের জীবন জীবিকা রক্ষায় এখনই নদী ভাঙ্গন কবলিত এলাকাগুলো স্থায়ী বাঁধ দেওয়া জরুরী।

LEAVE A REPLY