ভুল চিকিৎসায় শিশু মৃত্যুর অভিযোগ

1
102

 

অনলাইন ডেক্স:

সিলেট নগরের কুমারপাড়ার মা-মনি ক্লিনিকে ভুল চিকিৎসায় এক শিশুর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় ১ বছরের শিশু ইরফানের মৃত্যু হয়। সে সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার নুরুলাপুর গ্রামের জাবের উদ্দিনের ছেলে। এদিকে, শিশু মৃত্যুর ঘটনায় নিহতের স্বজনরা উত্তেজিত হয়ে উঠলে রাত সাড়ে ৯টায় ক্লিনিকে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এসময় পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মা-মনি ক্লিনিকের চেয়ারম্যান ও নিহত শিশুটির চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এমএ মতিনকে কোতোয়ালি থানায় নিয়ে যায়। জানা গেছে, সোমবার সকাল ৯টায় জাবের উদ্দিন তার শিশু সন্তানকে নিয়ে মা-মনি ক্লিনিকে চিকিৎসার জন্য যান। ক্লিনিকে ভর্তির সময় ডাক্তার এমএ মতিনের চিকিৎসা সেবা নেয়ার জন্য শিশু সন্তানকে ভর্তি করেন। কিন্তু সারা দিন যাওয়ার পরও ডাক্তার মতিন না আসায় নার্স এবং ডিউটি ডাক্তার কামরান শিশুটিকে ঘুমের ঔষধ, ইনজেকশনসহ বিভিন্ন ঔষধ দেন। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে শিশু ইরফান মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।  পরে মৃত শিশুর স্বজনরা রাত ৯টার দিকে মা-মনি ক্লিনিক ঘেরাও করে বিক্ষোভ করেন। এসময় তারা ক্লিনিকের ডাক্তার ও স্টাফদের লাঞ্ছিত করেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। ক্লিনিকে বিক্ষোভ করার খবর পেয়ে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতোয়ালি থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এসময় স্থানীয়দের চাপের মুখে অভিযুক্ত ডাক্তার এমএ মতিনকে আটক করে থানায় নিয়ে যা
এ নিয়ে শিশুরটির বাবা জাবের উদ্দিন অভিযোগ করে বলেন, আমার ছেলেটির চিকিৎসায় অবহেলার কারণে ডাক্তার না এসে হাতুড়ে ডাক্তার দিয়ে ভুল চিকিৎসার ফলে মৃত্যু হয়েছে। সিলেট কোতোয়ালি থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সোহেল আহাম্মদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, উত্তেজিত জনতার তোপের মুখ থেকে বাঁচাতে ও নিরাপত্তার স্বার্থে ডা. মতিনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।  তবে হাসপাতালে কোনো ধরনের ভাঙচুরের কথা তিনি অস্বীকার করে বলেন, ডা. মতিন গ্রেফতার নয়, তার নিরাপত্তার স্বার্থে থানায় নেওয়া হয়েছে। থানায় অভিযোগ দেওয়া হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
মা-মনি ক্লিনিকের হিসাবরক্ষক শাহ জসিম জানান, একটি অনাকাঙ্খিত ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। এর আগেও নগরীর কুমারপাড়ার মা-মনি হাসপাতালের ডাক্তারদের বিরুদ্ধে ভুল ইনজেকশনে ৩ মাসের শিশু হত্যার অভিযোগে ১২৫ কোটি টাকার ক্ষতিপূরণ চেয়ে মামলা করেছিল একটি পরিবার। গত ২৭ অক্টোবর নিহত শিশুর মা হালিমা বেগম সিলেটের যুগ্ম জেলা জজ ২য় আদালতে এ মামলা দায়ের করেন। মামলার প্রধান আসামি করা হয় মা-মনি হাসপাতালের চেয়ারম্যান ডাক্তার এম.এ মতিন।

এছাড়াও সহযোগী আসামি করা হয় ডাক্তার আজিজ উদ্দিন আহমদ, ডাক্তার মোদাব্বির হোসেন, ডাক্তার শফিকুর রহমান ও ডাক্তার আবু নাইম আহমদ। এর আগেও বাদী একটি চিকিৎসার কাগজ জালিয়াতি, ভুল চিকিৎসা ও শিশু হত্যার মামলা করেছিলেন। সেই মামলায় প্রথমে ডাক্তারদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছিলেন আদালত। পরে আসামিরা আদালতে হাজির হয়ে জামিন নেন। বর্তমানে দুজন আসামি এখনও পলাতক।