ভবিষ্যতের ডিজিটাল বিশ্ব

0
63
প্রযুক্তি ডেস্কঃ
ভার্চুয়াল রিয়্যালিটি
বার্লিনে ২০১৭ সালের আইএফএ কনজিউমার ইলেকট্রনিকস ট্রেড ফেয়ার জুড়ে রয়েছে এবার ভার্চুয়াল রিয়্যালিটি৷ ‘ভিআর-’এ নাকি টেলিভিশনেরও ভবিষ্যৎ বলছেন বিশেষজ্ঞরা৷ অপরদিকে উন্নততর ৩৬০° ক্যামেরা দিয়ে নাকি নিজের ব্যক্তিগত জীবনের পরম মুহূর্তগুলোকে চিরদিনের মতো ধরে রাখা যাবে৷
ডিজিটাল নেটিভ
এই প্রজন্মের গ্রাহকদের জন্য এন্টারটেইনমেন্ট ইলেকট্রনিকস এখন ব্লু টুথ ইয়ারবাডস আর স্মার্ট স্পিকার অবধি পৌঁছে গেছে৷ বিশেষ করে লাউডস্পিকারে আজকাল প্রায়ই ‘সিরি’ অথবা ‘অ্যালেক্সা’-র মতো ভয়েস অ্যাসিস্টেন্স লাগানো থাকে৷
স্মার্ট হোম
মনে রাখা দরকার, আইএফএ-তে হাউসহোল্ড অ্যাপ্লায়েন্সেস অর্থাৎ বাড়ির কাজের যন্ত্রপাতি প্রথম দেখানো হয় ২০০৮ সালে৷ আজ সে ধরণের যন্ত্রপাতি ছাড়া কোনো ইলেকট্রনিকস মেলা কল্পনাই করা যায় না৷ বাড়ির নানা কাজ ইতিমধ্যেই ডিজিটাল হয়ে পড়ছে৷ স্মার্ট হোম-এ বাড়ির কাজের বিভিন্ন যন্ত্রপাতি নেটওয়ার্ক করা থাকে৷ এই নেটওয়ার্কের পরিধিও ক্রমেই বেড়ে চলেছে৷ অন্যান্য যন্ত্রপাতিও ঢুকছে সেই নেটওয়ার্কে৷
‘স্বচ্ছ’ টেলিভিশন
যেন একটা জানলার কাঁচ – কিন্তু আসলে সেটা একটা স্বচ্ছ ডিসপ্লে, যা আবার একটা টাচস্ক্রিনও বটে৷ ভবিষ্যতের টেলিভিশন নাকি এ রকম হবে – ‘ফ্রেম ফাংশন’ থাকার ফলে টিভি বন্ধ করলেই স্ক্রিনটা গ্রাহকের পছন্দমতো একটা ক্লাসিক চিত্রকলায় পরিণত হয়ে বসার ঘরের শোভা বাড়াবে৷
ফেয়ারফোন ২
স্মার্টফোন তো আজকাল প্রায় সকলেরই আছে৷ ফেয়ারফোনের বিশেষত্ব হলো, তার টেকসই ও দীর্ঘ জীবন৷ ছোট ছোট পার্টস ভেঙে গেলে সহজেই নতুন করে লাগানো যায়৷ ফেয়ারফোন নির্মাতারা তাদের সরবরাহকারীদের কারখানায় শ্রমিকদের অবস্থার উন্নতি ঘটাতে সচেষ্ট৷ পরিবেশ সংরক্ষণের জন্য তারা বর্জ্য হ্রাসও করতে চান৷
ড্রোন
স্বভাবতই বার্লিনের আইএফএ প্রদর্শনীতে নানা স্ট্যান্ডের সামনে ড্রোন উড়তে দেখা যাবে৷ আরো বেশি সময় আকাশে থাকতে পারে ও আরো কম আওয়াজ করে, এমন সব ড্রোন দেখিয়ে প্রদর্শকরা ক্রেতাদের আকৃষ্ট করার চেষ্টা করছেন৷ অনেক ড্রোনেই বিশেষ ক্যামেরা বসানো আছে, যা দিয়ে আকাশ থেকে উচ্চমানের ছবি তোলা যায়৷
ফিটনেস
এখন ফিটনেস ট্র্যাকার আর হেল্থ অ্যাপ-এর সময়৷ এ সব স্মার্টওয়াচ খেয়াল রাখে, আপনি কত পা হাঁটলেন ও কত ক্যালরি খরচ করলেন; অথবা আপনার ঘুম কেমন হয়েছে বা আপনি যথেষ্ট হাঁটাচলা করছেন কিনা৷ তবে এই সব ‘ডিভাইস’ এখনও আধুনিক জীবনধারার অপরিহার্য অঙ্গ হয়ে উঠতে পারেনি৷