ব্রহ্মরাজপুরে ইটের আঘাতে এক ব্যক্তি গুরতর জখম : থানায় এজাহার

0
108

স্টাফ রিপোর্টার :

সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ব্রহ্মরাজপুরে আলম সাধু (ইঞ্জিন ভ্যান) কেনা-বেচার জের ধরে হত্যার উদ্দেশ্যে মারপিটে একজন মারাত্মক আহত হয়েছে। শুক্রবার সকালে ব্রহ্মরাজপুর বাজারের পল্টু ঘোষের মুদি দোকানের সামনে ঘটনাটি ঘটে। জানা যায়, বড়খামার গ্রামের মোঃ নুর আলি সরদারের ছেলে মোঃ হাবিবুল্লাহ বাবু (৩৩) বেশ কিছুদিন ধরে কুষ্টিয়া থেকে আলম সাধু (ইঞ্জিন ভ্যান) কিনে এনে এলাকায় বিক্রয় করে। একই গ্রামের মৃত কেয়ামুদ্দীন সরদারের ছেলে একিম সরদার (৪০)  অন্য একজনকে ভ্যান কিনে দেওয়ার জন্য হাবিবুল্লাহ বাবুর সাথে শুক্রবার সকালে ব্রহ্মরাজপুর বাজারে কথা বলতে থাকে। দর কষাকষিতে বনিবনা না হওয়ায় একিম তাকে দালাল সহ অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে। এ সময় হাবিবুল্লাহ প্রতিবাদ জানালে সে কোন কিছু বুঝে উঠার আগেই রাস্তার পাশ থেকে একিম ইট নিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে তার মুখে ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে সজোরে আঘাত করে।  এতে ইটের আঘাতে তার বাম চোয়ালে ও বাম চোখের উপরে বেশি আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে রক্তাক্ত জখম হয়। তার শরীর থেকে প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। এছাড়া তার সারা শরীর ইট দিয়ে থেতলে দেওয়া হয়েছে। চোখের উপরের আঘাতটি গুরতর বলে জানা গেছে। সেখানে হাড় ভেঙ্গে ক্ষতের সৃষ্টি হয়েছে। বাম চোখ দিয়ে হাবিবুল্লাহ সবকিছু ঝাপসা দেখতে পাচ্ছে বলে জানা গেছে।  ঘটনার পরপরই স্থানীয় লোকজন বাবুকে উদ্ধার করে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেছে। হাবিবুল্লাহ বাবু জানায়, ইট দিয়ে নির্মমভাবে হত্যার উদ্দেশ্যে একিম আমাকে বিনা দোষে রক্তাক্ত জখম করেছে। এছাড়া আমাকে আহত করে পকেট থেকে ব্যবসার ৭০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়ে গেছে। আমি তার শাস্তিমূলক বিচার চাই। এদিকে এই ঘটনায় শুক্রবার রাতেই হাবিবুল্লাহ বাবু বাদী হয়ে একিম সরদারকে আসামী করে সদর থানায় একটি এজাহার দিয়েছে। সদর থানার তদন্ত ওসি আবুল হাশেম লিখিত এজাহার পাওয়ার কথা স্বীকার করে জানান, ব্রহ্মরাজপুর পুলিশ ক্যাম্প ইনচার্জ এস,আই ইমদাদ বিষয়টি তদন্ত করে সত্যতা পেয়েছে। তাকে আসামি ধরার নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।

এম. আর মিঠু

LEAVE A REPLY