বুধহাটা শ্বেতপুরের একটি সড়ক মানুষের মুখে হাসি ফুটিয়েছে

0
91

আশাশুনি প্রতিনিধি:

আশাশুনি উপজেলার বুধহাটা ইউনিয়নের শ্বেতপুরে নবনির্মীত একটি সড়ক মানুষের মুখে হাসি ফুটিয়েছে। এলাকার মানুষ এখন অনায়াসে বদ্ধপ্রায় এলাকায় যেতে পেরে তুষ্টমনে রয়েছে।বুধহাটা টু শোভনালী সড়কের গা ঘেষে আবুল ঢালীর বাড়ি হতে বিচিত্র কুমার ঘোষ (মাস্টার) এর বেড় পর্যন্ত মাত্র ৬০০ ফুট সড়কটি নির্মাণের দাবী ছিল যুগ যুগ ধরে। নানা জটিলতার কারণে সেটি সম্ভব হয়নি। বহু পূর্বে সরকারি খাস জমিতে ভাঙাড় হিসেবে ব্যবহৃত এই অংশটি দিয়ে এলাকার মানুষ বিলে, ক্ষেতে বাড়িতে যাতয়াত করতো। কিন্তু আস্তে আস্তে সেটি বেদখল হতে থাকে। ইউপি চেয়ারম্যান আ ব ম মোসাদ্দেক এর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় গতমাসে জন মানুষের দাবীর কথা বিবেচনা করে ভাঙাড়কে রাস্তায় রুপ দিতে প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়। ২০ দিন ধরে কর্মসৃজন কর্মসূচির ৩৮ জন শ্রমিককে কাজে লাগিয়ে বেদখল হওয়া ভাঙাড়টিতে মাটি ভরাট দিয়ে রাস্তায় রূপান্তরিত করা হয়। খাস জমি চিহ্নিত করে সীমানা নির্দ্ধারনসহ সার্বিক সহযোগিতােয় ছিলেন বুধহাটা ইউনিয়ন সহকারী ভূমি কর্মকর্তা আঃ বারী। ইউপি চেয়ারম্যান আ ব ম মোসাদ্দেক বলেন রাস্তা নির্মানের সময় রাস্তার স্বার্থে ছোট ছোটে কয়েকটি চারা গাছ কেটে ফেলান হয়। সরকারি বা রাস্তার কোন গাছ কাটা হয়নি। তহশীলদার মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে গাছ কেটে নিতে সহায়তা করেছে বলে যে অপপ্রচার করা হচ্ছে সেটি সম্পূর্ণ মিথ্যা বলে তিনি জানান। প্রকল্পের চেয়ারম্যান ইউপি সদস্য রবিউল ইসলাম জানান, রাস্তার কাজ তিনি নিজে উপস্থিত থেকে করেছেন। রাস্তার সীমানার মধ্যের কোন গাছ কেউ কেটে নেইনি। রাস্তার পাশের বাসিন্দা হাজারী লাল বিশ্বাস জানান, রাস্তার কোন গাছ কাটা হয়নি। ছোট ছোট কয়েকটি গাছ গাছের মালিক কেটেছেন, যা তার নিজ জমির গাছ। রাস্তাটি নির্মীত হওয়ায় এলাকার ৫০/৬০ টি পরিবারের মানুষ অনায়াসে চলাচল করতে পারছেন। তাদের জমিতে চাষকাজে যাতয়াত করতে পারছেন। সর্বোপরি খাস জমি উদ্ধার করে বৃটিশ আমলের যাতয়াতের ভাঙাড়কে সড়কে রূপান্তরিত করায় এলাকার মানুষ তা ব্যবহার করতে পেরে খুশি হয়েছে।

জি এম মুজিবুর রহমান