বাল্যবিবাহ কেড়ে নিল আশুরার প্রাণ

0
284

মীর খায়রুল আলম,দেবহাটা:

বাল্যবিবাহের অভিশাপে অকালে হারিয়ে গেল একটি প্রাণ। অল্প বয়সেই মৃত্যুকে বরণ করে নিতে হলো আশুরার(১৪)। বৃহস্পতিবার সকালে দেবহাটার পল্লীতে ঘটনাটি ঘটে। আশুরা সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার সখিপুর ইউনিয়নের কোঁড়া গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছোট মেয়ে।

আশুরার পিতা আব্দুস সাত্তার বলেন, আমার মেয়ে ২০১৫ সালে এনামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পাস করে। পরে ঈদগাহ আমিনা খাতুন বালিকা বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি করি। এবছর সে ৮ম শ্রেণি উঠেছিল। ভাল সম্ভন্ধ পেয়ে ৩ মাস আগে আমার এলাকার আব্দুল খালের ছেলে ইউনুস আলী(২২)এর সাথে বিবাহ দেয়। ফলে তার লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যায়। আমি বুঝতে পারিনি আমার মেয়েকে এভাবে হারাবো। গত সোমবার শ্বশুর বাড়ি হতে আমার বাড়িতে নিয়ে আসি। পর দিন জামাই ইউনুস তাকে আনতে গেলে বুধবার নিয়ে যাওয়ার কথা বলি। বুধবার পুনরায় শ্বশুর বাড়িতে যায় আশুরা।

বৃহস্পতিবার সকালে শুনি সে ঘরের চালের বাঁশের সাথে শাড়ি জড়িয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। অল্প বয়সে মেয়েকে বিয়ে দিয়ে মারাত্মক ভুল করে ফেলেছি।

স্থানীয়রা জানায়, ইতোপূর্বে কালিগঞ্জ উপজেলার ভাড়াশিমলা গ্রামে জেসমিন নামের এক মেয়ে বিয়ে কওে ইউনুস। কিন্তু বিয়ের প্রায় ১৫ দিনের মাথায় ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। ইউনুসের পূর্বের বিয়ে এবং আশুরা অপ্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ায় শারীরিক ও মানসিক চাপ সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছে।

এবিষয়ে আশুরার শ্বশুর আব্দুল খালেক বলেন, আমরা তাকে মেয়ের মত ভালোবাসতাম। কেনো গলায় রশি দিয়ে আত্মহতা করেছে আমরা বুছতে পারছি না?

দেবহাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী কামাল হোসেন জানান, আত্মহত্যার বিষয়টি শুনেছি। তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দৈনিক সাতক্ষীর/জেড এইচ