বাংলার হারানো খেলা নতুন করে জাগিয়ে তুলেছে তুজলপুর কৃষকক্লাব

0
67
নিজস্ব প্রতিনিধি:
তুজলপুর গ্রামের কৃষক আবু বক্কর(৭০) বলেন গত দুই দিন যেন সেই ছিলাম এখান থেকে ৬০ বছর আগের জীবনে।মাঠে মঠে ধান কাটার সময় আর বর্ষা কালে কৃষকের গান শুনতে পতাম। সেই দির আমাদের মাঝখান থেকে হারিয়ে গেছে। সেই দিনগুলো নতুন করে তুজলপুর কৃষকক্লাব কিছুটা হলেও কৃষকদের পাশে দাড়িয়েছে। আয়োজন করেছে কৃষকদের জন্য বিনোদন আর হারানো খেলা। এ জন্য দুই দিন এলাকা ছিল মানুষে ভরপুর। সকরের মুখে ছিল আনন্দের ছাপ। বাংলার হারানো খেলা নতুন করে জাগিয়ে তুলেছে তুজলপুর কৃষকক্লাব। গাদন আর হাডুডু খেলা সঙ্গে ছিল কৃষকদের হাড়িভাঙ্গা খেলা। মেয়েদের কাপাল টিক্কা,চেয়ার খেলা ও আর বালিশ খেলা ছিল বাড়তি আকর্ষণ। গত দুই ছিল তুজলপুর ফুটবল মাঠ কৃষকদের মিলনা মেলা। বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে সাতক্ষীরা তুজুলপুরের দুইদিন ব্যাপী কৃষকের বর্ষবরণ ও গ্রামবাংলার ঐতিহ্যবাহী খেলার প্রতিযোগিতা এবং পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
গত রবিবার (১৫ এপ্রিল) সন্ধ্যায় তুজুলপুর কৃষক ক্লাবের আয়োজনে স্থানীয় ফুটবল মাঠে এ প্রতিযোগিতার সমাপনি ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়।
কৃষক ক্লাবের সভাপতি সাংবাদিক ইয়ারব হোসেনের সভাপতিত্বে সমাপনি ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানের আগে ছিল জাদু খেলা। ছিল সেই হারিয়ে যাওয়া গান। এলকার সব বয়সি মানুষ উপস্থিত থেকে উপভোগ করেন এ অনুষ্ঠান। অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পুরস্কার বিতরণ করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেন, প্রভাষক আবুল হোসেন।সাংবাদিক মনিরুল ইসলাম মনি।
কৃষক ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রহমানের পরিচালনায় এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন কৃষক মনিরুল ইসলাম, শিক্ষক মশিয়ার রহমান, জাহাঙ্গীর আলম, কবির হোসেন, কৃষক আমিনুর রহমান আব্দুল বারিক প্রমুখ।
কৃষকক্লাবের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রহমান জানান,প্রতিযোগিতার প্রথম দিনে স্থানীয় কৃষক এবং কৃষক পরিবারের সদস্যদের অংশগ্রহণে গ্রামবাংলার ঐতিহ্যবাহী গাদন)খেলা ও শিশুদের টিপ পড়ানো প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এবং ২য় দিন কলা গাছে উঠা, হাঁড়ি ভাঙা, চেয়ার সেটিং ও কৃষকদের কণ্ঠে বাউল, জারি-সারি গানের প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।
প্রতিযোগিতা শেষে প্রধান অতিথিসহ অন্যান্য অতিথিরা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।