বাংলাদেশ-ভারত যৌথ সামরিক মহড়া ‘সম্প্রীতি’ ৬ নভেম্বর শুরু

11
96
ওয়েব ডেস্কঃ
আগামী ৬ নভেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে পক্ষকালব্যাপী বাংলাদেশ-ভারত যৌথ সামরিক মহড়া ‘সম্প্রীতি-২০১৭’। ভারতের মিজোরাম রাজ্যের বাইরেংটিতে অবস্থিত জঙ্গল ওয়ারফেয়ার স্কুল ও মেঘালয় রাজ্যের উমরইয়ের জয়েন্ট ট্রেনিং নোড-এ এই মহড়া অনুষ্ঠিত হবে।
ভারতীয় প্রতিরক্ষা দফতরের জনসংযোগ বিভাগের কর্মকর্তা কর্নেল সি কুনওয়ার বলেন, ‘এ নিয়ে সপ্তমবারের মতো ভারত-বাংলাদেশ যৌথ সামরিক মহড়া সম্প্রীতি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এর মধ্য দিয়ে বিশ্বের কাছে এই বার্তা যাবে যে আন্ত:রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসবাদের উদীয়মান হুমকির বিষয়টি বাংলাদেশ ও ভারত ভালোভাবে অনুধাবন করতে পেরেছে এবং এই আতংক মোকাবেলায় তারা কাধে কাধ মিলিয়ে কাজ করছে।’
প্রতিবছর ভারত ও বাংলাদেশে পালাক্রমে সামরিক মহড়া ‘সম্প্রীতি’ আয়োজন করা হয়। প্রতিবেশি দুই দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যে ইতিবাচক সম্পর্ক সৃষ্টি ও জোরদার করা এই মহড়ার লক্ষ্য।
ওই জনসংযোগ কর্মকর্তা বলেন, ‘দুই দেশের মধ্যে ইন্টেরোপ্যারাবিলিটি জোরদার এবং বিদ্রোহদমন বা সন্ত্রাসদমন অভিযান পরিচালনায় পরস্পরকে অভিজ্ঞতা সমৃদ্ধ করা এই মহড়ার লক্ষ্য।’
‘সম্প্রতি’ মহড়ার আগের সংস্করণ গতবছর বাংলাদেশের টাঙ্গাইলে অনুষ্ঠিত হয়।
এবারের মহড়া অনুষ্ঠিত হবে দুটি রাজ্যে – এর মধ্যে রয়েছে কমান্ড পোস্ট এক্সারসাইস (সিপিএক্স) ও ফিল্ড ট্রেনিং এক্সারসাইজ (এফটিএক্স)। সিপিএক্স অনুষ্ঠিত হবে উমরইয়ে, ৬ থেকে ১১ নভেম্বর পর্যন্ত। অন্যদিকে এফটিএক্স অনুষ্ঠিত হবে বাইরেংটিতে ৬ থেকে ১৮ নভেম্বর পর্যন্ত।
সেনা কর্মকর্তা বলেন, ‘ব্রিগেড ও ব্যাটালিয়ন কমান্ড পোস্টের অংশ হিসেবে সিপিএক্স-এ দুই দেশ থেকে ২০ জন করে অফিসার অংশ নেবেন। অন্যদিকে এফটিএক্স-এ বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একটি পদাতিক কোম্পানি এবং ভারতীয় সেনাবাহিনীর এলিট রেড হর্নস ডিভিশনের একটি কোম্পানি অংশ নেবে।
তিনি জানান, সিপিএক্স-এ আধা-পাহাড়ি এলাকায় সন্ত্রাসদমন অভিযান পরিচালনার জন্য যৌথ পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নের ওপর গুরুত্ব দেয়া হবে। বিশেষ করে গভীর জঙ্গলে অভিযান চালানোর বিষয়টি থাকবে মনযোগের কেন্দ্রবিন্দুতে। অন্যদিকে, এফটিএক্স-এ ফিজিক্যাল কন্ডিশনিং, হেলিকপ্টারবাহী স্পেশাল অপারেশন, ইমপ্রভাইজড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস নিষ্ক্রিয়করণ, ঘেরাও ও তল্লাসি অভিযান এবং সন্ত্রাসদমন দৃশ্যপটে কোম্পানি ও প্লাটুন পর্যায়ে ট্যাকটিক্যাল ড্রিলের গুরুত্ব দেয়া হবে।

11 COMMENTS