বদরতলায় স্বামীর বিরুদ্ধে দ্বিতীয় স্ত্রীর মুখে বিষ ঢেলে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ

0
104

মোমিনুর রহমান:

আশাশুনি উপজেলার শোভনালি ইউনিয়নের বদরতলায় গ্রাম্য ডাক্তার সাহেব আলী খাঁ’র বিরুদ্ধে দ্বিতীয় স্ত্রী সেলিনা বেগমের মুখে বিষ ঢেলে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে।
জানা যায়, দেবহাটা উপজেলার চালতেতলা গ্রামের সাহেব আলী গাজীর কন্যা সেলিনা বেগমের সাথে  শোভনালি ইউনিয়নের বদরতলা গ্রামের মুজিবর খাঁ’র ছেলে সাহেব আলীর গত ২২ জুলাই ২০১৭ তারিখে ২ লক্ষ টাকা দেনমোহরে বিবাহ সম্পর্ণ হয়।
কিন্তু সম্প্রতি গ্রাম্য ডাক্তার সাহেব আলীর পরিবারের মাঝে দ্বিতীয় বিয়ের ঘটনাটি জানা জানি হওয়ার পর থেকে দ্বিতীয় স্ত্রী সেলিনা বেগমের সাথে প্রায়ই ঝগড়া-ঝাঠি করত স্বামী সাহেব আলী। এক পর্যায়ে স্ত্রী সেলিনা বেগমের সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে গোপনে কোটের মাধ্যমে  গত ৫ সেপ্টম্বর ২০১৭ তারিখে একটি তালাক নামা পাঠিয়ে দেয় স্ত্রী সেলিনা বেগমের কাছে। সোমবার স্ত্রী সেলিনা বেগমের কাছে তালাক নামাটি পৌছালে ওই দিন সন্ধ্যা ৭ টার দিকে বদরতলা বাজারের তার স্বামীর এ কে ফার্মেসীতে (ঔষধের দোকান) গেলে সেলিনা বেগমকে বসতে বলে তার স্বামী। এ সময় স্বামী সাহেব আলী সু-কৌশলে তার বাড়িতে খবর দেয় এবং বাড়ি থেকে কেউ আসার আগেই স্ত্রী সেলিনাকে ঔষধ বলে বিষ খাইয়ে হত্যার চেষ্টা করে।
পরে বাড়ি থেকে সাহেব আলীর পিতা মুজিবর খাঁ, প্রথম স্ত্রী রুখসানা বেগম এবং রুখসানার পিতা দলু খাঁ, স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্য কাশেম, একই গ্রামের গোলাম রহমানের ছেলে মুকুল হোসেন এসে দ্বিতীয় স্ত্রী সেলিনাকে অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ ও ধাক্কির এক পর্যায়ে সে অচেতন হয়ে পড়ে। সে সময় স্থানীয়রা স্ত্রী সেলিনাকে উদ্ধার করে কুলিয়া একটি ক্লিনিকে ভর্তি করে।
এ ঘটনার পর থেকে গ্রাম্য ডাক্তার সাহেব আলী তার এ কে ফার্মেসীতে  তালা  ঝুলিয়ে গা ঢাকা দিয়েছে বলে জানা গেছে।
এ ব্যাপারে দ্বিতীয় স্ত্রীর পিতা সাহেব আলী গাজী বলেন, আমার কন্যার উপর ওরা যে নির্যাতন করেছে তা ক্ষমার অযোগ্য। সে এখন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। আমি জড়িতদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির জন্য সংশ্লিষ্ঠ প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করব।
এ বিষয় সাবেক ইউপি সদস্য কাশেম বলেন, আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করেছে তা সত্য নয়।

LEAVE A REPLY