প্রচণ্ড কুয়াশা আর হার কাঁপানো ঠাণ্ডায় শীত বস্ত্রর দিকে চেয়ে অসহায় মানুষ

0
109
পীরগঞ্জ,ঠাকুরগাঁও:
ঘন কুয়াশা আর ঠাণ্ডা বাতাসে ঠাকুরগাওয়ের পীরগঞ্জে জন জীবনে স্থবিরতা নেমে এসেছে। কয়েক দিন ধরে বৃষ্টির মত ঝড়ছে কুয়াশা সেই সাথে পশ্চিমা বাতাস। দুপুরের আগে সূর্যের মুখ দেখা মিলছে না। এতে ঠাণ্ডা বেড়ে গেছে কয়েক গুন। প্রচণ্ড ঠাণ্ডার কারণে সকালে কাজে বের হতে পরছে না খেটে খাওয়া মানুষ জন। দিনের বেলায় হেড লাইট জ্বালিয়ে চলাচল করছে ইঞ্জিন চালিত যানবাহনগুলো। সারা রাত ঝরছে ঝিরঝির বৃষ্টির মত। জরুরী কাজ ছাড়া দুপুরের আগে ঘড় থেকে বের হচ্ছে না মানুষ। খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা চালাচ্ছে ছিন্নমূল পরিবারের সদস্য।এদিকে গরম কাপড়ের দোকানগুলিতে ভীড় পরেছে। তবে ক্রেতারা জানায়, দাম বেশী তাই কিনতে পারছেন না। এদিকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কয়েক দিনে পৌরসভা ও ১০টি ইউনিয়নে প্রায় ৪ হাজার কম্বল প্রদান করা হয়েছে যা অত্যন্ত নগণ্য। শীত বস্ত্রের জন্য উপজেলা পরিষদ, ইউনিয়ন পরিষদ সহ বিভিন্ন দপ্তরে ধরনা দিচ্ছে অভাবী পরিবারের শত শত মানুষ। সৈয়দপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান একরামুল হক, দৌলতপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কার্তিক চন্দ্র রায় ও জাবরহাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবীর জানান, শত শত লোক শীত বস্ত্রের জন্য আসছে। সরবরাহ কম থাকায় দিতে পারছি না।
অপরদিকে বে-সরকারী ভাবে আই পজেটিভ, আলহাজ্ব মোবারক আলী চ্যারিটেবল ট্রাষ্ট, মানব কল্যাণ বেতার সংঘ, ল্যাম্পপোস্ট সহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান পক্ষ থেকে এরই মধ্যে কিছু শীত বস্ত্র প্রদান করা হয়েছে।উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ ডব্লিউ এম রায়হান শাহ বলেন, ৩ হাজার সাড়ে ৭’শ কম্বল প্রদান করা হয়েছে। আশা করছি আরো কম্বল পাওয়া যাবে। পেলেই প্রদান করা হবে।