নিজের তৈরি করা খেলোয়ারের কাছেই হার শাহরুখের কলকাতার

0
75
ডি এস ডেস্ক:
প্রতিপক্ষ একাদশে সাবেক তিন সেনানী, যাদের সঙ্গে এতটা দিন বসবাস ছিল কলকাতা নাইট রাইডার্সের। সাকিব আল হাসান, ইউসুফ পাঠান আর মনিশ পান্ডে- কলকাতা ছেড়ে এবার খেলছেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদে। শনিবার সাবেক দল কলকাতাকে যেন জবাব দিতেই মাঠে নেমেছিলেন সাবেক এই তিন নাইট। তাতে বিজয়ী সানরাইজার্স হায়দরাবাদ, কলকাতার সঙ্গী হলো একরাশ হতাশা। সাকিব আল হাসান তো বরাবরই তারকা পারফরমার। দল বদলালেও তার পারফরম্যান্সে প্রভাব পড়ছে না।
এবারের মৌসুমে নতুন দল হায়দরাবাদে বরং আরও বেশি উজ্জ্বল মনে হচ্ছে বাংলাদেশি অলরাউন্ডারকে। শনিবার ব্যাটে-বলে কোনো দিক দিয়েই পিছিয়ে ছিলেন না, বলতে গেলে একাই জিতিয়েছেন হায়দরাবাদকে। প্রথমে বল হাতে ৪ ওভার হাত ঘুরিয়ে ২১ রানে ২ উইকেট। এরপর আবার ব্যাটে ২১ বলে ২৭ রান। এমন পারফরম্যান্সের পরও অবশ্য ম্যাচসেরার পুরস্কারটি হাতে উঠেনি সাকিবের।
তবে যাদের দেখাতে এমন উজ্জ্বল সাকিব, সেই কলকাতা কিন্তু ভেতরে ভেতরে ঠিকই পুড়েছে! শুধু সাকিব নয়, কলকাতাকে ভালোই জবাব দিয়েছেন তাদের আর দুই সাবেক-ইউসুফ পাঠান আর মনিশ পান্ডে। পাঠান শেষদিকে ৭ বলে ১৭ রানের এক ঝড়ো ইনিংসে দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে গেছেন। মনিশ অবশ্য ব্যাট হাতে তেমন অবদান রাখতে পারেননি (৪ রান করেছেন), তবে গুরুত্বপূর্ণ দুটি ক্যাচ নিয়েছেন। কলকাতার নিতীশ রানাকে পয়েন্টে দুর্দান্ত ক্যাচে ফিরিয়ে দেয়ার কথা বাদ দিন। বাদ দিন আন্দ্রে রাসেলকে আউট করা ক্যাচটিও।
এর মাঝে বাউন্ডারি লাইনের উপর উড়ন্ত অবস্থায় বল ধরে মাঠের ভেতর পাঠিয়ে আবার ঝাঁপিয়ে পড়ে যেভাবে ধরার চেষ্টা করেছিলেন মনিশ, সেটা কেবল হলিউডের সিনেমাতেই দেখা যায়। ক্যাচটি নিতে না পারলেও অবধারিত এক ছক্কা বাঁচিয়ে দেন তিনি। সব মিলিয়ে বলা যায়, তিন সাবেকের কাছেই হেরেছে কলকাতা। এর মধ্যে সাকিবই ছিলেন সবচেয়ে উজ্জ্বল।