নারীর প্রতি সহিংসতা দূরীকরণ দিবস আজ

0
46
নারীর প্রতি সহিংসতা দূরীকরণ দিবস আজ। ১৯৬০ খ্রিষ্টাব্দের ২৫ নভেম্বর ডোমিনিকান প্রজাতন্ত্রে ৩ জন নারী নির্যাতিত হয়। এ ঘটনার স্মরণে ১৯৮১ খ্রিষ্টাব্দের জুলাই মাসে প্রথম লাতিন আমেরিকায় নারী অধিকার সম্মেলনে ২৫ নভেম্বরকে নির্যাতনবিরোধী দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয় এবং প্রতিবছর ২৫ নভেম্বর থেকে ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত পক্ষকালব্যাপী সংশ্লিষ্ট বিষয়ে প্রচারণা চালানোর সিদ্ধান্ত হয়।
১৯৯৩ খ্রিষ্টাব্দের ২৫ নভেম্বর জাতিসংঘ ‘নারী নির্যাতন দূরীকরণ ঘোষণা’ প্রকাশ করে। ১৯৯৯ খ্রিষ্টাব্দের ১৭ ডিসেম্বর জাতিসংঘ ডোমিনিকান প্রজাতন্ত্রের খসড়া অনুমোদন করে প্রতিবছর ২৫ নভেম্বরকে আনুষ্ঠানিকভাবে ‘আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন দূরীকরণ দিবস’ হিসেবে গ্রহণ করে। সেই থেকে বাংলাদেশসহ জাতিসংঘের সকল সদস্য রাষ্ট্রে দিবসটি পালিত হয়ে আসছে।
কিন্তু কমছে না নারীর প্রতি সহিংসতার মাত্রা। বরং নতুন নতুন কলাকৌশল ও প্রযুক্তির মাধ্যমে সংঘটিত হচ্ছে নারীর প্রতি সহিংসতা। নারীর যৌন হয়রানি রোধে বাংলাদেশে বিভিন্ন আইন প্রণীত হয়েছে। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারের অধীনে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটি গঠন করার কথা বলা হয়েছে। কিন্তু বাস্তবে এ সকল আইনের প্রয়োগ এবং সুযোগ-সুবিধাগুলো সম্পর্কে নেতিবাচক ধারণা বিদ্যমান।
নারী নির্যাতন প্রতিরোধসেবা সম্পর্কে ইতিবাচক মনোভাব তৈরি ও বিদ্যমান আইনি সুবিধাগুলোর যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করলে নারীর যৌন হয়রানি কমবে বলে আশা করা যায়।