দেবীশহর ফুটবল মাঠে আওয়ামীগের জনসভায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

0
316
মীর খায়রুল আলম, দেবহাটা:
বর্তমান সরকারের প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অসাম্প্রদায়িক চেতনায় ঘুরে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশ। দেশের মানুষ এখন আর অনাহারে দিন কাটায় না। মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর দক্ষ নেতৃত্বে দেশ এখন উন্নয়নের মহা সড়কে উপনীত হয়েছে। দেশে প্রতিটি ঘরে বিদ্যুৎ পৌছে দিতে কাজ করে যাচ্ছে সরকার। এখন মানুষ হাতের নাগালে কমিউনিটি ক্লিনিক, সরকারি হাসপাতাল থেকে উন্নত মানের চিকিৎসা ও ঔষধ সেবা পাচ্ছে।
আগামী নির্বাচনে জননেত্রী শেখ হাসিনা যাদেরকে নৌকা প্রতীক প্রদান করবেন তাদেরকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করতে হবে। এ সরকারের আমলে যে সকল উন্নয়ন মূলক কাজ করা হয়েছে স্বাধীনতার পর থেকে কোন সরকার তা করতে পারিনি। এ সরকারের উন্নয়নের কথা বলে শেষ করা যাবে না। তাই আওয়ামীলীগ ও শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালি করতে সকলকে একত্রে কাজ করতে হবে। বর্তমান সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রচেষ্টায় অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হওয়ায় বিভিন্ন ধর্মের মানুষ নির্বিষেœ তাদের ধর্ম পালন করতে পারছে। এমনকি বিএনপির আমলে খালেদা জিয়া ও তার ছেলে মিলে দেশের সম্পদ বিদেশে পাচার করেছিল। শুধু তাই নয়, সারা দেশে দুর্নীতিতে ছেয়ে গিয়েছিল।
সেখানে আমার সরকারকে কোন প্রকার দুর্নীতি স্পর্শ করতে পারিনি। আমার সরকার দেশ থেকে যুদ্ধ অপরাধীদের বিচার করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সোনার বাংলা নির্মাণ করতে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি আরো বলেন, বিগত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সাতক্ষীরা তথা দেশের বিভিন্ন স্থানে নাশকতা, সহিংসতা, হত্যা কান্ড ঘটিয়ে দেশকে অস্থিতিশীল করে ক্ষমতায় যেতে চেয়েছিলেন। তাদের চক্রান্ত ব্যর্থ হয়েছে কেষ হাসিনার কঠোর নের্তৃত্বে। এখানেই শেষ নয়, পৃথিবীর মানচিত্রে বাংলাদেশ একটি ক্ষুদ্র দেশ হওয়ার সত্বেও মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের  আশ্রয় দিয়ে বিশ্বের কাছে সুনাম অর্জন করেছেন। তাই উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে শেখ হাসিনার নৌকাকেই বিজয়ী করতে হবে। বছরের শুরুতেই ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে বিনামূল্যে বই বিতরণ, উপবৃত্তির হার বৃদ্ধি, বয়স্ক ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, বিধবা ভাতা, ভিজিডি কার্ড, ভিজিএফ কার্ড সহ বিভিন্ন ভাতা প্রদান করেছেন তিনি। জননেত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বে এসব উন্নয়ন বাস্তবায়ন সম্ভব হচ্ছে। তাই উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আগামী নির্বাচনেও আপনারা নৌকায় ভোট দিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করবেন। দেবহাটা উপজেলা আওয়ামীলীগের আয়োজিত জন সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন বাংলাদেশ সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল (এমপি)।
সভায় উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব মুজিবর রহমানের সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনির সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন সাবেক সফল স্বাস্থ্য মন্ত্রী অধ্যাপক আলহাজ্ব ডাঃ আ.ফ.ম রুহুল হক এমপি, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুনসুর আহম্মেদ। উপস্থিত ছিলেন সাতক্ষীরা সদর-২ আসনের সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা মীর মোস্তাক আহম্মেদ রবি, সাতক্ষীরা-৪ আসনের সংসদ সদস্য জগলুল হায়দার, সাতক্ষীরা-১ আসনের সংসদ সদস্য এড. মোস্তফা লুৎফুল্লাহ, সংরক্ষিত সংসদ সদস্য মিসেস রিফাত আমিন-এমপি, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম, যুগ্ন-সম্পাদক ও সাতক্ষীরা প্রেস ক্লাবের সভাপতি অধ্যক্ষ আবু আহম্মেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আসাদুজ্জামান বাবু, দেবহাটা উপজেলা চেয়ারম্যান ও মুক্তিযোদ্বা কমান্ডার আলহাজ্ব আব্দুল গনি, শ্যামনগর উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউল হক দোলন, তালা উপজেলা চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার, আশাশুনি উপজেলা চেয়ারম্যান এবিএম মোস্তাকিম, কলারোয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ফিরোজ আহম্মেদ স্বপন, সাতক্ষীরা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরিফুল হক, এএসপি মেরিনা আক্তার, দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাফিজ-আল-আসাদ, দেবহাটা থানার ওসি কাজী কামাল হোসেন, কালিগঞ্জ থানার ওসি সুবীর দত্ত, সদর থানার ওসি মারুফ হোসেন, শ্যামনগর থানার ওসি আব্দুল মান্নান, পাটকেলঘাটা থানার ওসি মোল্লা জাকির হোসেন, কলারোয়া থানার ওসি বিপ্লব কুমার, আশাশুনি থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান রতন, কালিগঞ্জ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সাঈদ মেহেদী, দেবহাটা উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন-সম্পাদক আনোয়ারুল হক, সাংগঠনিক সম্পাদক ও সখিপুর ইউপি চেয়ারম্যান শেখ ফারুক হোসেন রতন, যুবলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান মিন্নুর, সাধারণ সম্পাদক বিজয় ঘোষ, স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক ও দেবহাটা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মাহবুব আলম খোকন, শ্রমিকলীগের সভাপতি আবু তাহের, সাধারণ সম্পাদক আমিরুল ইসলাম, ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান সবুজ, সাধারণ সম্পাদক হাফিজুল ইসলাম হাফিজ সহ বিভিন্ন আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, সরকারি কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষক, সাংবাদিক এবং বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ।