দেবহাটার বিটি বেগুনের ক্ষেত পরিদর্শন করলেন উপ-পরিচালক কৃষিবিদ কাজী আ:মান্নান

0
194

দেবহাটা প্রতিনিধি: বাংলাদেশে প্রায় ১শত ধরনের সবজি চাষ হচ্ছে। এর মধ্যে চাহিদা, উৎপাদন ও ভোক্তা প্রিয়তার শীর্ষে থাকা প্রধান চারটি সবজির মধ্যে বেগুন অন্যতম একটি সবজি। আর বেগুন উৎপাদনের প্রধান সমস্যা হলো ডগা ও ফল ছিদ্রকারী পোকা। তাই বাংলাদেশের কৃষকরা বেগুন উৎপাদনে শত্রু পোকা দমনের জন্য এক মৌসুমে ১৬০-১৮০ বার স্বাস্থ্য ও পরিবেশর জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর কীটনাশক প্রয়োগ করে। ফলশ্রুতিতে একদিকে যেমন পরিবেশ দূষন অন্যদিকে স্বাস্থ্যহানি হচ্ছে। তাছাড়া ফসল উৎপাদনে খরচও ব্যপক ভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই উন্নত বিশ্বে আবিষ্কৃত কাঙ্কিত বৈশিষ্ট্যের জিন(পৎু ষ ধপ) বাংলাদেশী ৯টি জাতের সংযোজন করে বিটি বেগুন নামে ৯টি জাত উদ্ভাবন করা হয়েছে। ২৮ অক্টোবর ২০১৩ সালে বিটি বেগুন অবমুক্ত করার ফলে বাংলাদেশে জিএম ফসল চাষে ২৯ তম দেশে হিসাবে পরিগণিত হয়। উদ্ভাবিত বিটি বেগুনের জাত গুলো হাইব্রিড না হওয়ায় কোম্পানীর কাছ থেকে ক্রয় করতে হয়না, কীটনাশক সীমিত লাগে, স্বাস্থ্য ভালো থাকে, পরিবেশ দূষন হয়না এবং কৃষকরা নিজেদের বীজ নিজেরাই উৎপাদন ও সংরক্ষণ করতে পারেন। সাতক্ষীরা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ কাজী আব্দুল মান্নান বুধবার মাটিকোমড়া গ্রামে বাবুর আলী সরদারের বসতবাড়ির ভিটায় বিটি বেগুনের ক্ষেত পরিদর্শন কালে এসব কথা বলেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা প্রশিক্ষন কর্মকর্তা কৃষিবিদ জি এম এ গফুর। অন্যন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আহাদ আলী খান, জাহিদুজ্জামান প্রমুখ।

নাজমুল হাসান/মুন/রহ