দিনভর জঙ্গি অভিযানে নিহত ১১

0
100

অনলাইন ডেস্ক:

গাজীপুর ও টাঙ্গাইলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযানে সন্দেহভাজন ১১ জঙ্গি নিহত হয়েছে। শনিবার (৮ অক্টোবর) সকালে এ অভিযানে নিহতদের মধ্যে নব্য জেএমবির ‘সামরিক কমান্ডার’ আকাশ রয়েছে বলেও জানিয়েছে পুলিশ। এই অভিযানে পুলিশের  দুই সদস্য আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন, কাউন্টার টেররিজম ও ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম।একই সময় গাজীপুরের দুটি স্থানে জঙ্গি আস্তানায় র‌্যাব-পুলিশের অভিযান চলে। তার আগে টাঙ্গাইলে র‌্যাবের আরেক অভিযানে সন্দেহভাজন দুই জঙ্গি নিহত হন। গাজীপুর সিটি করপোরশন এলাকার হারিনালে র‌্যাবের অভিযানের পর বেলা পৌনে ১১টার দিকে নোয়াগাঁওয়ের আফারখোলা পাতারটেক এলাকার একটি দোতলা  বাড়িতে অভিযান শুরু করে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিট, সঙ্গে ছিল সোয়াট। যে বাড়িতে পুলিশের অভিযান চলে, তার মালিক সৌদি প্রবাসী সোলেমান সরকারের। তার ভাই কালীগঞ্জ উপজেলার জাঙ্গালিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার আরবি  শিক্ষক ওসমান গণি বাড়িটি দেখাশোনা করেন।তিন মাস আগে তার কাছ থেকে তিনজন বাড়িটির দোতলা ভাড়া নেয়। ওই তিনজন জঙ্গি বলে ধারণা পুলিশের। র‌্যাবের মুখপাত্র মুফতি মাহমুদ খান দুপুরে জানান, নিহতদের একজন রাশেদুল (২০) এবং অন‌্যজন তৌহিদুল ইসলাম (২২) বলে র‌্যাবকে জানায় বাড়ির মালিক  আতাউর জানিয়েছেন। তৌহিদ ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (ডুয়েটে) শিক্ষার্থী, রাশেদ এবার এইচএসসি পাস করেছে।ওই বাড়ি থেকে একটি একে-২২ রাইফেল, একটি পিস্তল, রাইফেলের ৭০ রাউন্ড গুলি, কিছু বিস্ফোরক ও একটি ল্যাপটপ উদ্ধারের কথা জানিয়েছেন আইনশৃঙ্খলা  বাহিনীর কর্মকর্তারা। এই অভিযানের ব্যাপারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, ‘আত্মসমর্পণের আহবানে সাড়া না দেয়ায় গুলি’।তিনি আরো বলেন, ‘এখানে যারা ছিল, সবাই জঙ্গি গ্রুপের সঙ্গে জড়িত। কিছু একটা করার জন্য তারা এখানে ছিল। এদের পরিচয় আমরা পরে জানাব।’র‌্যাব ১২-এর কমান্ডার ও অতিরিক্ত উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) শাহাবুদ্দিন খান জানান, কাগমারা মির্জাবাড়ির মাঠের পাশে আজাহার আলী মাস্টারের বাড়িতে গত  ২৭ সেপ্টেম্বর জঙ্গিরা বাসা ভাড়া নেয়। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আজ সকাল সাড়ে ১০টার দিকে র‌্যাবের সদস্যরা সেখানে অভিযান চালান। এ সময় আল্লাহু আকবর  ধ্বনি দিয়ে জঙ্গিরা র‌্যাবের দিকে গুলি চালায়। র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালালে দুই জঙ্গি নিহত হয়।