তালার খলিলনগর প্রাইমারির শিক্ষক কাশেমের বিরুদ্ধে সীমাহীন অভিযোগ

0
53
তালা প্রতিনিধি :
৪র্থ ও পঞ্চম শ্রেণির উঠতি বয়সের ছাত্রীদের সাথে অনৈতিক আচরণ, ক্লাস ফাকি দিয়ে সরকার বিরোধী আন্দোলন, যৌতুকের দাবীতে স্ত্রীকে তালাক প্রদান ও বিভিন্ন শিক্ষিকাকে মোবাইল ফোনে উত্ত্যক্ত করা সহ সীমাহীন অভিযোগ উঠেছে তালার খলিলনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মো. আবুল কাশেম সরদারের বিরুদ্ধে। ঘটনার প্রতিকার সহ উক্ত বিতর্কিত শিক্ষকের শাস্তির দাবীতে অভিভাবকরা সহ একাধিক ব্যক্তি বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন করেছেন। সেমতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তদন্ত শেষে আবুল কাশেমের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট সুপারিশ করেছেন। কিন্তু দীর্ঘদিনেও ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ অভিযুক্ত শিক্ষক আবুল কাশেমের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে অভিভাবক সহ সচেতন মহল।
সূত্রে জানাগেছে, তালার দক্ষিণ নলতা গ্রামের মৃত. আমের আলী সরদারের পুত্র মো. আবুল কাশেম সরদার ছাত্রাবস্থায় পাইকগাছা উপজেলার সোনাতনকাটি গ্রামের মো. এরশাদ আলী গাজীর মেয়ে সালমা আক্তারকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর সালমার পিতার খরজে লেখাপড়া সহ শিক্ষকতার মতো মহান চাকুরী লাভের সুযোগ পায়। কিন্তু চাকরির সুযোগ পেয়েই আবুল কাশেম যৌতুকের দাবীতে তার স্ত্রী সালমার উপর নানাবিধ অত্যাচার শুরু করে। এরইমধ্যে লম্পট আবুল কাশেম পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়ে এবং ঘরের মধ্যে অন্য নারীর সাথে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা পড়ে। এঘটনার প্রতিবাদ করতেই আবুল কাশেম তার স্ত্রীকে মারপিট করে তাড়িয়ে পিতার বাড়িতে পাঠিয়ে দেয় এবং কয়েকদিন পর একতরফা তালাক প্রদান করে। পরবর্তীতে সামাজিক বিভিন্ন চাপের মুখে আবুল কাশেম আবারও সাবেক স্ত্রী সালমাকে বিয়ে করে। কিন্তু তাতেও স্বভাব ভাল হয়নি তার। সে এবার এক ছাত্রীর সাথে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা পড়ে তৃতীয় বারের মতো সেই ছাত্রীকে বিয়ে করে এবং প্রথম স্ত্রী সালমাকে তাড়িয়ে দেয়। সালমা বর্তমানে ঢাকায় একটি গার্মেন্টসে কাজ নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে।
এদিকে স্ত্রী নিয়ে আবুল কাশেম এমন অনৈতিক আচরণ করার পাশাপাশি সে নিজ স্কুলের উঠতি বয়সের ৪র্থ ও ৫ম শ্রেণির ছাত্রীদের শরীরের স্পর্শকাতর স্থানে বিভিন্ন অজুহাতে হাত দিয়ে যৌন হয়রানী করে বলে অভিযোগ রয়েছে। এছাড়াও পরীক্ষায় ভাল মার্ক দেবার আশ্বাস দিয়ে একাধিক ছাত্রীকে যৌন হয়রানী, একাধিক শিক্ষিকাকে মোবাইলে উত্ত্যক্ত করা, স্কুলে ঠিক মতো ক্লাস না করা, ক্লাসে হাজির হলেও ঠিকমতো পাঠদান না করা, বেতন বৃদ্ধির নামে সরকার বিরোধী আন্দোলনে যোগ দেবার কথা বলে অন্যান্য স্কুলের সহকারী শিক্ষকদের কাছ থেকে চাঁদা উত্তোলন, চাঁদার নামমাত্র অংশের টাকা দিয়ে আন্দোলন করা এবং উত্তোলিত চাঁদার বাকি টাকা আত্মসাৎ করে তালা উপশহরে বাড়ি তৈরির অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। তার এসব অনৈতিক এবং ছাত্রীদের যৌন হয়রানী করার বিষয় জানাজানি হলে অভিভাবকদের চাপের মুখে তাকে ইতোপূর্বে প্রসাদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বদলি হতে হয়। কিন্তু “চোর না শোনে ধর্মের কাহিনী” সেখানেও যেয়ে লম্পট কাশেম দরিদ্র পরিবারের উঠতি বয়সের একাধিক ছাত্রীকে যৌন হয়রানী করে। বিষয়টি সেখানেও জানাজানি হলে এক ছাত্রীর পিতাকে ১ মন চাল ঘুষ দিয়ে অপকর্ম থেকে রেহায় পায়। কিন্তু এখানকার অভিভাবকরা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠলে সে বদলি হয়ে আবারও খলিলনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চলে আসে। এখানে পুনরায় এসে অসম্ভব ক্ষমতার অধিকারী (!) লম্পট শিক্ষক আবুল কাশেম আবারও একের পর এক অনৈতিক কাজ করে যাচ্ছে। এসব ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে অভিভাবকরা সহ কাশেমের সাবেক স্ত্রী সালমা আক্তার তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবং উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সহ বিভিন্ন দপ্তরে প্রতিকার সহ শাস্তির দাবীতে আবেদন করেছেন। আর আবেদনের বিষয়ে কার্যকরী ব্যবস্থা নেওয়া না হলে আন্দোলন করা হবে বলে হুমকি দিয়েছেন অভিভাবকরা।
উপজেলা প্রাথমিক অফিস সূত্রে জানাগেছে, প্রাপ্ত অভিযোগের ভিত্তিতে শিক্ষা অফিসের উদ্যোগে সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. নজরুল ইসলামকে আহবায়ক করে ইতোমধ্যে ৭সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠিত হয়। গঠিত কমিটি প্রয়োজনীয় তদন্ত শেষে গত ২৭ জানুয়ারি তদন্ত রিপোর্ট জমা দেন। যেখানে সহকারী শিক্ষক আবুল কাশেমের অপকর্মের সকল সত্যতা পাওয়া গেছে বলে উল্লেখ করা হয় এবং তার বিরুদ্ধে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সুপারিশ করা হয়েছে। কিন্তু দীর্ঘদিনেও কর্তৃপক্ষ কোনও ব্যবস্থা না নেওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে অভিভাবকরা সহ সচেতন মহল। এক্ষণে আবুল কাশেমের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা না নিলে অভিভাবক ও সচেতন মহল নানাবিধ ব্যবস্থা নিবে এবং আইনশৃঙ্খলার কোনও অবনতি হলে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার দায়ী থাকবে বলে জানিয়েছে।