তরুণরা বইমুখী হোক

0
137

বরুণ ব্যানার্জী : তরুণরাই জাতির দর্পণ। একটি দেশের ভবিষ্যতের গতি-প্রকৃতি নির্ভর করে তরুণদের কর্মকান্ডের ওপর। জ্ঞান অর্জন ও দিকনির্দেশনার অন্যতম প্রধান মাধ্যম হওয়ায় বইয়ের সঙ্গে তরুণদের সখ্য পুরো জাতির অবস্থা বদলে দিতে জোর ভূমিকা পালন করে। আমাদের দেশ নিয়ে যত কারণে আমরা আশাবাদী, তার একটি কারণ এদেশের তরুণ সমাজ। প্রত্যাশা তারা কেবল সংখ্যায় নয়, জ্ঞান-গরিমায় অগ্রসর হয়ে বিশ্বের সঙ্গে টেক্কা দিতে সক্ষম হবে। তার জন্য তরুণদের অবশ্যই গ্রন্থমুখী হতে হবে । শখের বশে নয়, বই পড়াকে বানাতে হবে অভ্যাস।

আমাদের আত্মপরিচয়ের মূলে রয়েছে ভাষা-সংস্কৃতি। বই শৈল্পিক ও সৃজনশীল আত্মপরিচয়ের বিষয়টি তরুণদের কাছে তুলে ধরার ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা পালন করে। প্রযুক্তির কল্যাণে বই পড়ার ধরণে পরিবর্তন আসতে পারে, কিন্তু অভ্যাসে নয়। অনেকেই মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ কিংবা আইপ্যাডে ই-বুক পড়ে থাকে। বিনামূল্যে এবং যত্রতত্র পড়া যায় বলে এটিও বই পড়ার একটা কৌশল হতে পারে। কিন্তু বই পড়াকে সেকেলে ভেবে এর আবেদন খাটো করা নিজেদের নির্বুদ্ধিতার পরিচয় ছাড়া আর কিছু নয়। ভাষার মাস এবং মাসব্যাপী অমর একুশে গ্রন্থমেলা শুরু হলেই কেবল বই পড়ার বিষয়ে উৎসাহী হতে হবে এবং এমনটি না ভেবে বইকে নিত্যসঙ্গী করে নিতে হবে। ভালোবেসে পড়তে হবে। অন্যকে উৎসাহিত করতে হবে। ভিনদেশি সিরিয়ালমুখী নয়, আমরা চাই আমাদের তরুণ প্রজন্ম হবে গ্রন্থমুখী। বই-ই তাদের শুদ্ধ ও সঠিক পথের দিশা দেবে। দূর হবে আগামী দিনের যাবতীয় সংশয়।

LEAVE A REPLY