ডোনাল্ড ট্রাম্পকে যেভাবে খুশি রাখেন হোয়াইট হাউজের স্টাফরা

0
51

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। প্রথম বারের মতো মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওযার পর থেকে তিনি সারা বিশ্বে আলোচনায় আসেছেন। এমনকি বেশ কয়েকবার বেসামাল কথা বলেও খবরের শিরোনাম হয়েছেন তিনি। এতে তিনি সবার কাছে হাসির পাত্র হয়ে উঠেছেন।

সম্প্রতি হোয়াইট হাউজে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের স্টাফরাই তিনি প্রেসিডেন্ট হিসেবে কাজ করার উপযুক্ত কীনা তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। প্রেসিডেন্টের আচরণকে তারা তুলনা করেন একটি শিশুর সঙ্গে, যাকে তাৎক্ষণিকভাবে সন্তুষ্ট করতে হয়।

ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নিয়ে লেখা বিতর্কিত বই ‘ফায়ার এন্ড ফিউরি’র লেখক মাইকেল ওলফ তার বই নিয়ে বিতর্ক শুরু হওয়ার পর এই প্রথম দেয়া কোন সাক্ষাৎকারে একথা বলেছেন। মিস্টার ওলফ মার্কিন টেলিভিশন নেটওয়ার্ক এনবিসি’কে এই সাক্ষাৎকার দেন।
মাইকেল ওলফ এই বইটি লিখেছেন প্রায় দুশো জনের সাক্ষাৎকারের ভিত্তিতে। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তার বইটিকে ‘মিথ্যে কথায় ভরা’ বলে নাকচ করে দিয়েছেন। কিন্তু মিস্টার ওলফ বলেছেন, এই বইতে প্রকাশিত প্রতিটি কথা সত্য। যাদের সঙ্গে কথা বলে তিনি বইটি লিখেছেন তাদের সাক্ষাৎকারের রেকর্ড বা নোট তার কাছে আছে।
প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প দাবি করেছিলেন যে মাইকেল ওলফের সঙ্গে তিনি কখনো কথাই বলেননি। কিন্তু মিস্টার ওলফ বলেছেন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে তিনি তিন ঘন্টা সময় কাটিয়েছেন।
বইটি নিষিদ্ধ করার জন্য আইনি নোটিশ পাঠিয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের আইনজীবীরা। কিন্তু সেটি উপেক্ষা করে প্রকাশনার তারিখ এগিয়ে এনে শুক্রবারই এটি বাজারে ছাড়া হয়েছে।
এই বই নিয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প শুক্রবারও তাঁর ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া অব্যাহত রেখেছেন। তিনি অভিযোগ করেছেন, তাঁকে আঘাত করার জন্য গণমাধ্যম এবং তার প্রতিপক্ষ এই বইটিকে সামনে আনছে।
তবে এর জবাবে মাইকেল ওলফ বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কোন বিশ্বাসযোগ্যতা নেই এবং যারা তার চারপাশে আছেন তাদের শতকরা একশো জনই প্রেসিডেন্ট পদে কাজ করার মতো তিনি যোগ্য কীনা তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন।
হোয়াইট হাউজের কর্মীদের উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি বলেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের আচরণ একটা শিশুর মতো। তার সব কিছুই নিজেকে নিয়ে। তিনি কিছু পড়েন না, কিছু শোনেন না। তিনি একটা পিনবলের মতো সব দিকে উল্টো পাল্টা ছুটতে থাকেন।
মিস্টার ওলফ বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তার বইটির প্রকাশনা থামাতে গিয়ে বরং উল্টো বইটির কাটতি বাড়িয়ে দিয়েছেন।
মিস্টার ওলফকে হোয়াইট হাউজে তার কাছে যাওয়া বা তার সঙ্গে কথা বলার সুযোগ দেয়া হয়নি বলে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের দাবির জবাবে তিনি বলেন, সেটাই যদি হবে, তাহলে আমি হোয়াইট হাউসে কী করছিলাম? আমি অবশ্যই প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কথা বলেছি। এবং এসব কথাবার্তা অফ দ্য রেকর্ড ছিল না।
নির্বাচনী প্রচারাভিযানের সময় এবং প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেয়ার পর ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে তিনি মোট তিন ঘন্টা সময় কাটিয়েছেন বলে দাবি করেন।
বিবিসির উত্তর আমেরিকা বিষয়ক সম্পাদক জন সোপেল বলেছেন, এই বইতে যা লেখা হয়েছে তার অর্ধেকও যদি সত্য হয় তাহলে বুঝতে হবে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প মারাত্মক মতিভ্রমের মধ্যে আছেন এবং তাঁর হোয়াইট হাউসে একটা বিশৃঙ্খলা চলছে।