ঝাউডাঙ্গায় গৃহবধু কনিকা সরকারের উপর পাশবিক নির্যাতনের আসামী আলাউদ্দিন জেল হাজতে

0
378

মনিরুল ইসলাম মনি:

বিড়াল মারতে লাঠি দিয়ে সহযোগিতা করার অভিযোগে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের এক গৃহবধুকে অমানুষিক নির্যাতনের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার প্রধান আসামী আলাউদ্দিনকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। রোববার মা রেবেকা ও আলাউদ্দিন সাতক্ষীরার জ্যেষ্ট বিাচারিক হাকিম প্রথম আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন জানালে বিচারক হাবিবুল্লাহ মাহমুদ রেবেকার জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন। একই সাথে আসামী আলাউদ্দিনকে জেল হাজতে পাঠনোর নির্দেশ দেন। আমিন না’মঞ্জুর হওয়া আসামী আলাউদ্দিন সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ঝাউডাঙ্গা ইউনিয়নের গোবিন্দকাটি গ্রামের সামছুদ্দিন ওরফে নাসির উদ্দিনের ছেলে। মামলার বিবরণে জানা যায়, গত ২ মে গোবিন্দকাটি গ্রামের দীপু সরকারকে বিড়াল মারার জন্য লাঠি দেওয়ার অপরাধে বিড়াল মালিক একই গ্রামের জামায়াত কর্মী আলাউদ্দিন ও তার মা তাকে দুর্গা মন্দিরের পাশ থেকে সুকুমার সরকারের স্ত্রী কণিকা সরকারকে ধরে এনে লোহার রড ও বাঁশের লাঠি দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে  জখম করে। এতে তিনি মারাত্মক আহত  হন। স্বজনরা কনিকাকে তাৎক্ষণিক সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানে তিনি দু’সপ্তাহ চিকিৎসাধীন ছিলেন। স্ত্রীকে অমানুষিক নির্যাতনের ঘটনায় সুকুমার সরকার বাদি হয়ে গত ৯ মে আলাউদ্দিন ও তার মা রেবেকার নাম উল্লেখ করে থানায় মামলা করেন। দু’সপ্তাহে ও আসামী ধরা হচ্ছে না বলে গত শুক্রবার ও শনিবার বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় এ খবর ছাপা হয়।