কাশ্মিরে বিয়ের অতিরিক্ত খরচে নিষেধাজ্ঞা

0
205

অনলাইন ডেস্ক :

ভারত শাসিত কাশ্মিরে বিয়েতে কড়াকড়ি আরোপ করেছে কাশ্মির সরকার। কাশ্মিরে বিয়ের খরচ ও আমন্ত্রিত অতিথির সংখ্যা নির্ধারণ করে একটি নির্দেশ জারি করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, কনের বাবা-মা পাঁচশো`র বেশি অতিথিকে আমন্ত্রণ জানাতে পারবেন না। এছাড়া বরের বাবা-মা ৪০০ অতিথিকে আমন্ত্রণ জানাতে পারবেন। কাশ্মির সরকার বলছে, বিয়েতে যে কোনো ধরনের খাবারের অপচয় রোধে সাত প্রকারের বেশি খাবার পরিবেশন করা যাবে না। দেশটির একজন এমপি অবশ্য ব্যয়বহুল বিয়েতে একই ধরনের নিষেধাজ্ঞা পুরো ভারতে আরোপের প্রস্তাব করেছেন।

কাশ্মিরে বিয়ের খরচ অনেক ব্যয়বহুল। এছাড়া বিয়েতে নিরামিষ, আমিষসহ বিভিন্ন ধরনের খাবারের আয়োজন করা হয়। এসব খাবারের মধ্যে থাকে স্থানীয় ঐতিহ্যবাহী খাবার ওয়াজওয়ান। রাজ্য সরকার বলছে, বিয়ের অনুষ্ঠানে অনধিকার প্রবেশের কারণে গোলমাল, বর্জ্য সৃষ্টি ও অপচয়ের বিষয়ে জনগণের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে এ আদেশ জারি করা হয়েছে। আগামী ১ এপ্রিল থেকে এটি কার্যকর হবে। ১৯৮৪ সালে রাজ্য সরকার একই ধরনের একটি নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিল। কিন্তু প্রতিবাদের মুখে তা প্রত্যাহার করে নেয়া হয়।

ভারতের অন্যান্য অংশেও বিয়ের খরচ অত্যন্ত ব্যয়বহুল। বিয়েতে অনেকেই খাবার, কাপড় ও বিনোদনের জন্য প্রচুর অর্থ অপচয় করেন। গত নভেম্বরে কর্ণাটকের সাবেক মন্ত্রী ও ব্যবসায়ী জি জনার্ধনা রেড্ডির মেয়ে ব্রাহ্মানির বিয়ের অনুষ্ঠান চলে পাঁচদিন ব্যাপি। এতে খরচ হয় অন্তত পাঁচশ কোটি রূপি (৭৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার)। দেশটিতে নগদ অর্থের সংকটের সময় রেড্ডি কন্যার ব্যয়বহুল এই বিয়ে দেশজুড়ে ব্যাপক সমালোচনা তৈরি করে। কর্ণাটকের এই মন্ত্রীর মেয়ের বিয়ের আমন্ত্রণ পত্রে ছিল, স্বর্ণের প্রলেপ ও এলসিডি স্ক্রিন। এতে খরচ হয় এক কোটি রূপি।

এস এম পলাশ