কলারোয়ায় শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় সমাহিত বজলুল করিম

0
321
কলারোয়া প্রতিনিধি:
কলারোয়ায় হাজারো মানুষের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে চির নিদ্রায় সমাহিত হলেন বরেণ্য ব্যক্তিত্ব, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান, কলারোয়া থানা ও পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি, ৪ বারের যুগিখালি ইউপি চেয়ারম্যান ও বামনখালি হাইস্কুলের সাবেক প্রধান শিক্ষক প্রয়াত বজলুল করিম।  মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯ টায় কলারোয়া উপজেলা পরিষদ ঈদগাহ ময়দানে প্রথম ও সকাল সাড়ে ১০ টায় মরহুমের প্রিয় কর্মস্থল বামনখালি হাইস্কুল ময়দানে দ্বিতীয় নামাজে জানাযা শেষে গোচমারা গ্রামের পারিবারিক কবরস্থানে তাঁর দাফন সম্পন্ন করা হয়। কলারোয়া ও বামনখালির নামাজে জানাযায় হাজার হাজার শোকার্ত মানুষ শরিক হন। মানুষ হিসেবে বজলুল করিম যে কতো জনপ্রিয় ছিলেন, তা মানুষের এই স্বত:স্ফূর্ত উপস্থিতি বলে দেয। কলারোয়া ও বামনখালির জানাযায় শরিক হন সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব বিএম নজরুল ইসলাম, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফিরোজ আহম্মেদ স্বপন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম লাল্টু, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আরাফাত হোসেন, উপজেলা বিএনপির সভাপতি অধ্যাপক বজলুর রহমান, শিক্ষাবিদ অধ্যাপক এমএ ফারুক, লেখক ও কলামিস্ট প্রফেসর আবু নসর, প্রাক্তন অধ্যক্ষ রইছ উদ্দিন, উপজেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক মশিউর রহমান, যুগিখালি ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল হাসান, জেলা বিএনপি নেতা আশরাফ হোসেন, উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রকিব মোল্লা, শেখ আব্দুল কাদের বাচ্চু, বিএনপি নেতা আলহাজ্ব শেখ তামিম আজাদ মেরিন, শেখ শরিফুজ্জামান তুহিন, শিক্ষক নেতা আমানউল্লাহ আমান, মরহুমের বড় ছেলে পুলিশ কর্মকর্তা সালাউদ্দিন, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার বিপুল সংখ্যক মানুষ। উল্লেখ্য, জননেতা বজলুল করিম (৭০) সোমবার দুপুরে ঢাকার ধানমন্ডির একটি হাসপাতালে চিকিৎসারত অবস্থায় ইন্তেকাল করেন।

দৈনিক সাতক্ষীরা/জেড এইচ