কলারোয়ায় মেধাবী এসএসসি পরীক্ষার্থীর সহায়তা দান

0
27
জুলফিকার আলী,কলারোয়া:
কলারোয়া উপজেলার পৌর সদরের তুলসীডাঙ্গা গ্রামের এই ছেলেটির নাম রাসেল আলম। কলারোয়া মডেল হাইস্কুল থেকে এবার সে এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। বাণিজ্য বিভাগের এই মেধাবী ছাত্র ভালো ফলাফল করবে বলে আশা করছে। রাসেলের অপারেশনের ব্যয় নির্বাহের জন্য গতকাল চারটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রী,সম্মানিত শিক্ষক, কর্মচারী অর্থ প্রদান করেছেন।  শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো হলো- কলারোয়া গার্লস স্কুল ৩৫০০/, সোনারবাংলা ডিগ্রী কলেজ২০০০/-, কয়লা মাধ্যমিক স্কুল ১৭০০/ ও বামনখালি মাধ্যমিক স্কুল ১০০০/  সর্বমোট ৮২০০/-(আট হাজার দুইশত টাকা। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে, সময়ের ব্যবধানে ধীরে ধীরে সে দৃষ্টিশক্তি হারিয়ে ফেলছে। ডান চোখে সে এখন আর তেমন দেখতে পাচ্ছেনা। রাসেলের পিতা নাসির হোসেন একজন দিনমজুর। ছেলের এই দুরবস্থয় চিকিৎসা খরচ চালিয়ে যাওয়ার মতো সাধ্য তার নেই। বিশেষজ্ঞ ডাক্তাররা জানিয়েছেন, ডান চোখের রেটিনার সমস্যা। যা অপারেশন করা ছাড়া আর কোনো বিকল্প নেই। আর এর জন্য খরচ পড়বে ৩ লাখ টাকার মতো। এই বড় অঙ্কের টাকা যোগাড়ের কোনো মাধ্যম দরিদ্র পিতার নেই। তাই টাকা যোগাড় হচ্ছে না বলে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়া যাচ্ছেনা। রাসেলের স্কুলের   প্রধান শিক্ষক রুহুল আমিন বলেন, সমাজের বিত্তবান মানুষ একটু সহানুভূতির হাত বাড়ালে মেধাবী এই ছেলেটি পথ খুঁজে পাবে উন্নত ভবিষ্যতের। রাসেলের মা চায়না বেগম সাংবাদিকদের জানান, ছেলে যে ডান চোখে কম দেখতে পাচ্ছে তা তারা আগে বুঝতে পারেননি। এটি জানা গেছে, এসএসসি পরীক্ষা চলাকালীন। পরীক্ষার পর ডাক্তার দেখানোয় তারা নিশ্চিত হয়েছেন ডান চোখের সমস্যার ব্যাপারে। সমাজের দানশীল ও বিত্তবান মানুষ তাঁর ছেলের চিকিৎসার জন্য সহানুভূতির হাত বাড়িয়ে দেবেন-এমন আশা করছেন মা চায়না বেগম। কেননা, জরুরীভিত্তিতে এখনই অপারেশন করা না গেলে পুরোপুরি ডান চোখের দৃষ্টিশক্তি হারিয়ে ফেলবে রাসেল। সেই সাথে বাম চোখও ক্ষতিগ্রস্ত হবে। মানুষের সহায়তা ছাড়া রাসেলকে সুস্থ করে তোলা যাবেনা-এটি এক রকম নিশ্চিত করেই বলা যায়। আমরা কী পারি না মেধাবী এই এসএসসি পরীক্ষার্থীর পাশে দাঁড়াতে?  ফিরিয়ে দিতে পারি না তার সম্ভাবনাময় শিক্ষা জীবন। পরিবারের পক্ষ থেকে রাসেলের চিকিৎসা সহায়তা গ্রহণের জন্য ইসলামী ব্যাংক, কলারোয়া শাখায় একটি হিসাব নং (৮৬৩) খোলা হয়েছে। এছাড়া পরিবারের সাথে যোগাযোগের জন্য একটি মোবা ফোন নাম্বার (০১৮৮৪-৪৩৩৩০০) সংযুক্ত।