কলারোয়ায় শ্লীলতাহানির ভিডিও ইন্টারনেটে আপলোডের অভিযোগে ৪ স্কুল ছাত্র আটক

38
330

কলারোয়া ‍অফিস:

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় এক স্কুল ছাত্রীকে শ্লীলতাহানি ও তা মোবাইলে ভিডিও করে ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে ৪ যুবককে আটক করেছে থানা পুলিশ। বুধবার সকালে তাদের কলারোয়া থানা পুলিশ আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে। ওই ঘটনায় আটক ৪ যুবককে আসামি করে কলারোয়া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা হয়েছে। য়ার নং -৩২, তাং-১৯/৭/১৭ইং। মামলার বিবরণে জানা যায়-কলারোয়া পৌরসভাধীন গদখালী গ্রামের জনৈক চাকুরীজীবীর কন্যা কলারোয়া জিকেএমকে পাইলট হাইস্কুলের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী (১২) গত ১৬ জুলাই রোববার দুপুর দেড়টার দিকে স্কুলের অর্ধ-বার্ষিক পরীক্ষা শেষে বাড়ি ফেরার পথে স্কুলের পাশের একটি রাস্তায় উত্যক্ত করে শ্লীতাহানির চেষ্টা করে ৪ যুবক। ওই যুবকদের মধ্যে শাকিল ওই ছাত্রীকে স্কেলদিয়ে গায়ে আঘাত করে ও অপর এক যুবক অপু শ্লীতাহানির চেষ্টা করে। সে সময় অপর দুই যুবক উজ্জল ও সজল ওই ঘটনা মোবাইলে ভিডিও ধারণ করে ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়। ওই দৃশ্য ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়ে ও বিষয়টি জানতে পেরে ছাত্রীর পিতা বাদী হয়ে কলারোয়া থানায় অভিযুক্ত ৪ যুবককে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। পুলিশ তাৎক্ষণিক অভিযুক্ত বখাটে ৪ যুবককে আটক করে। আটককৃতরা হলো-কলারোয়া পাইলট হাইস্কুলের ছাত্র পৌরসভাধীন গদখালী গ্রামের মোশারফ হোসেন শেখের ছেলে আজাহার হোসেন শেখ অপু (১৬), একই গ্রামের আব্দুর রহমান গাজীর ছেলে শাকিল হোসেন গাজী (১৬), শ্রীপতিপুর গ্রামের রফিকুল ইসলাম গাজীর ছেলে উজ্জল হোসেন গাজী (১৬) ও গদখালী গ্রামের আলী আল মামুনের ছেলে সজল মোড়ল (১৭)। কলারোয়া থানার অফিসার ইনচার্জ বিপ্লব দেবনাথ মামলার বিষয়টি  নিশ্চিত করেছেন। এদিকে, ন্যাক্কারজনক ওই ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থী, অভিভাবকসহ সুধী সমাজ।

কামরুল হাসান

38 COMMENTS