কপিলমুনিতে বীমা প্রকল্পের বিরুদ্ধে গ্রাহক হয়রানীর অভিযোগ

1
139

কপিলমুনি প্রতিনিধি:
পল্লী পারিবারিক বীমা প্রকল্প (হোমল্যান্ড লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানী) এর খুলনা জেলার পাইকগাছা উপজেলার কপিলমুনি শাখার ইনচার্জ মোঃ আবু বাক্কার সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারিতা, গ্রাহক হয়রানী ও অসদাচারণের অভিযোগ উঠেছে।  লিখিত ওই অভিযোগে জানাযায়, কপিলমুনির পার্শ্ব¦বর্তী গদারডাঙ্গা গ্রামের বাসিন্দা হরেকৃষ্ণ সরকারের স্ত্রী মালতী রানী সরকার হোমল্যান্ড লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানীর পল্লী পারিবারিক বীমা প্রকল্প এর কপিলমুনি শাখায় ২০০৬সালের ২৮মে ১০বছর মেয়াদী একটি পলিসি খোলেন, যার নং-এ ৩৭০০০০২২৩৩-০। পলিসিটির মেয়াদ ২০১৬সালের ২৮মে পূর্ণ হয়। এরপর পলিসি গ্রাহক মালতী জমাকৃত টাকা উত্তোলনের জন্য কপিলমুনি শাখা অফিসে যোগাযোগ করেন। শাখাটির ইনচার্জ মোঃ আবু বাক্কার সিদ্দিকী তাকে কপিলমুনি জনতা ব্যাংক শাখায় একটি হিসাব খুলতে বলেন, সে মোতাবেক মালতী ওই শাখায় একটি হিসাব খোলেন, যার নং-০৮৯২৩৪০৩২৬৮৬। এরপর টাকা উত্তোলনের জন্য ইনচার্জের সাথে যোগাযোগ করেন, তখন ইনচার্জ আবুবাক্কার আজ না কাল বলে ওয়াদা করতে থাকেন। এভাবে দীর্ঘ ৭মাস অতিবাহিত হলেও মালতি ওই টাকা আজও বুঝে পাননি বলে দাবী করেন।  অভিযোগে মালতী আরো বলেন, টাকা উত্তোলন কবে হবে এমন প্রশ্নের জবাবে বীমাটির অফিস ইনচার্জ আবুবাক্কার তাকে আরো একটি নতুন পলিসি খোলার জন্য চাপ প্রয়োগ করেন। তিনি বলেন ‘নতুন পলিসি খুললে তাড়াতাড়ি পূর্বের টাকা আসবে, না খুললে দেরী হবে। বেশী পিড়াপিড়ি করলে যবে আইবে তবে পাইবে’। এমন কথা বলে ধমক দিয়ে অফিস থেকে তাকে তাড়িয়ে দেন।  এ বিষয়ে জানতে চাইলে বীমাটির শাখা ইনচার্জ মোঃ আবুবাক্কার সিদ্দিকী প্রথমত বক্তব্য দিতে রাজি হননি। পারে তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘আমি এই এলাকার দায়িত্বে আছি কিন্তু কোম্পানী টাকা না দিলে আমি কি করবো’। অসদাচারণের প্রশ্নে তিনি বলেন ‘আমি তেমন কিছু বলিনি’।

এম আজিজুর রহমান

1 COMMENT