আমরণ অনশনে শিক্ষকরা

0
35
নিজস্ব প্রতিবেদক:
বেতনের সরকারি অংশ বা এমপিওভুক্তির দাবিতে আজ রোববার থেকে আমরণ অনশনে বসেছেন নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা।
বেতন-ভাতার দাবিতে গত মঙ্গলবার থেকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন শিক্ষকরা।
এর আগে গতকাল শনিবার নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহমুদুন্নবী ডলার শিক্ষকদের দাবি আদায়ের লক্ষ্যে রোববার সকাল থেকে আমরণ অনশন কর্মসূচির ডাক দেওয়ার কথা জানান।
এমপিওভুক্ত নয়, দেশে এখন এমন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে পাঁচ হাজার ২৪২টি। এমপিওভুক্ত না হওয়ায় এসব প্রতিষ্ঠানের ৭০ থেকে ৮০ হাজার শিক্ষক-কর্মচারীকে মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে।
এদিকে, নন-এমপিও শিক্ষকদের আন্দোলনের বিষয়টি অর্থ মন্ত্রণালয়সহ সরকারের উচ্চপর্যায়ের সঙ্গে সম্পৃক্ত জানিয়ে গতকাল শনিবার শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ শিক্ষকদের উদ্দেশে বলেন, শীতের মধ্যে এত কষ্ট করে লাভ নেই। আন্দোলন বাদ দিয়ে শিক্ষকদের বাড়িতে গিয়ে খাওয়াদাওয়া করার অনুরোধ করেন তিনি।
আন্দোলনরত শিক্ষকরা বলছেন, বেতন-ভাতা না পেয়ে পরিবার নিয়ে তাঁদের মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে।
শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির আন্দোলন প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী বলেছেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অনুমোদন নেওয়ার আগে একটি লিখিত শর্তই থাকে, ভবিষ্যতে শিক্ষকরা এমপিওভুক্তির জন্য কোনো ধরনের দাবিদাওয়া পেশ করতে পারবেন না। এমপিওভুক্তির জন্য ভবিষ্যতে আবেদন করা হবে না, মর্মে অঙ্গীকার করেই নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অনুমোদন নেওয়া হয়। কিন্তু অনুমোদনের পরই শিক্ষকরা তাঁদের দুরবস্থার কথা তুলে ধরে এমপিওভুক্তির জন্য আন্দোলন শুরু করেন। এতে মানবিক কারণেই সবাই শিক্ষকদের দাবিকে সমর্থন করেন।
এতে বাজেটে অর্থ বরাদ্দের বিষয় জড়িত জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী জানান, বাজেটের আগেই অর্থ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে দেনদরবার করা হয়। অর্থ মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পেশ করা হয়। কিন্তু এখন শিক্ষকরা নতুন করে আন্দোলন করছেন। এ আন্দোলনে কোনো ফল বয়ে আনবে বলে তিনি মনে করেন না।