আটকে থাকা বাঙালিদের নাগরিকত্ব দিচ্ছে পাকিস্তান!

0
100
বিশ্ব ডেস্কঃ
১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে পাকিস্তানে বেশ কিছু বাঙালি আটকে যায়। এ সংখ্যা ২৮ লাখ বলে বিভিন্ন পাকিস্তানি গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে।
এবার সে বাঙালিদের পাকিস্তানের নাগরিকত্ব দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটির সরকার।
মূলত পাকিস্তানের করাচি ও তার আশপাশেই আটকে থাকা বাঙালিদের বাস। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার আগেই তারা সেখানে বসতি গড়ে। এরপর বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভ করলে তাদের নাগরিকত্ব আটকে দেয় পাকিস্তান সরকার। করাচিতে তাদের জন্য তৈরি করা হয় ক্যাম্প। সেখানে মানবেতর পরিস্থিতিতে বহু বাঙালি বাস করছে।
আটকে পড়া বাঙালিদের নাগরিকত্ব দেওয়ার বিষয়টি প্রথম রিপোর্ট করে পাকিস্তানের সামা টিভি। তাতে জানানো হয় দেশটির নাগরিকত্ব যাচাইকরণ প্রোগ্রামের সংসদীয় কমিটি পাকিস্তানের শাসনতন্ত্র সংশোধনের মাধ্যমে আটকে পড়া বাঙালিদের বৈধ করার প্রস্তাব দিয়েছে।
তবে বাঙালিদের বৈধ করার বিষয়টি সহজ নয়।
কারণ এ জন্য পাকিস্তানের নাগরিকত্ব আইন সংশোধন করতে হবে। রিপোর্টে বলা হয়, পাকিস্তানে প্রায় ২৮ লাখ বাঙালি আটকে থাকলেও তাদের মধ্যে ১৫ লাখ করাচি ও তার আশপাশে রয়েছে।
বহু বছর সামরিক শাসনে থাকায় আটকে থাকা বাঙালিরা রাজনীতির শিকার হয়েছেন। তাদের বেশ কয়েকবার নাগরিকত্ব দেওয়ার কথা উঠলেও শেষ পর্যন্ত তা হয়নি। এ জন্য সেখানকার বাঙালিদের মধ্যে অসন্তোষও রয়েছে।
করাচিতে প্রায় ১০৫টি বাঙালি বস্তি রয়েছে। সেখানে বসবাসরত প্রায় সবাই এখন পাকিস্তানের নাগরিকত্ব চাইছে। তাদের অনেকের জন্ম পাকিস্তানে। ফলে নাগরিকত্ব দেওয়াটা সময়ের দাবি।