আখেরি মোনাজাতে বিশ্ব শান্তি কামনা

0
27

বিশ্বের মুসলিম উম্মার সুখ, শান্তি, কল্যাণ, অগ্রগতি, ভ্রাতিত্ববোধ ও মঙ্গল কামনা করে আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে তাবলিগ জামায়াতের বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। প্রথমবারের মতো এবারই বাংলায় মোনাজাত করা হয়।

রোববার সকাল ১০টা ৫০ মিনিটে মোনাজাত শুরু করেন ঢাকার কাকরাইল জামে মসজিদের পেশ ইমাম মাওলানা মোহাম্মদ যোবায়ের। মোনাজাত শেষ হয় সোয়া ১১টায়।

আখেরি মোনাজাতকে কেন্দ্র করে শিল্প নগরী টঙ্গী ও রাজধানী উত্তরার আশপাশের ২০ কিলোমিটার এলাকা ধর্মীয় উৎসবের নগরীতে পরিণত হয়। তবে এবার দেশের অর্ধেক জেলাকে দুই ভাগে বিভক্ত করে প্রথম পর্বে ঢাকা জেলাসহ ১৪ জেলার তবলিগ জামাতের অনুসারীরা বিশ্ব ইজতেমা যোগ দেয়ায় তুরাগ তীরে লোক সংখ্যা অন্যবারের চেয়ে কম হয়েছে।

সকাল থেকেই ইজতেমা ময়দান ও আশপাশের এলাকায় নীরবতা নেমে আসে। থেমে থেমে এই নীরবতা ভঙ্গ করে লাখ লাখ মুসল্লির আমিন, ছুম্মা আমিন,আল্লাহুম্মা আমিন ধ্বনীতে মুখরিত প্রকম্পিত হয়ে উঠে ইজতেমা ময়দান।

ভোর থেকেই মোনাজাতে অংশ নিতে টঙ্গীর তুরাগ তীরে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের ঢল নামে। ফজরের নামাজের পরই টঙ্গী শহর, ইজতেমাস্থল ও এর আশপাশ এলাকা জনসমুদ্রে পরিণত হয়। দেশ বিদেশের লাখ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের উপস্থিতিতে এবাদত, বন্দেগী, জিকির, আসকার আর আল্লাহু আকবর ধ্বনিতে উত্তাল কহর দরিয়া খ্যাত টঙ্গীর তুরাগ পাড়ের বিশ্ব ইজতেমা ময়দান। পুরুষদের পাশাপাশি নারীরাও মোনাজাতে শরিক হতে ইজতেমা প্যান্ডেলের বাইরে অবস্থান নেন।

ইজতেমার আয়োজক কমিটির মুরুব্বি গিয়াস উদ্দিন জানান, সকাল ৮টা ২০ মিনিটে ইজতেমা মাঠে শুরু হয় হেদায়েতি বয়ান।

এবারের বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বে ঢাকার একাংশসহ দেশের ১৪ জেলার মুসল্লিরা অংশ নিচ্ছেন। এসব এলাকার মুসল্লি আগামী বছরের বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নিতে পারবেন না।

প্রথম পর্বে আগত ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা যেসব খিত্তায় অবস্থান করেছেন তা হল- ঢাকা (খিত্তা ১-৮, ১৬, ১৮, ২০ ও ২১), পঞ্চগড় (৯), নীলফামারী (১০), শেরপুর (১১), নারায়ণগঞ্জ (১২ ও ১৯), গাইবান্ধা (১৩), নাটোর (১৪), মাদারীপুর (১৫), নড়াইল (১৭), লক্ষ্মীপুর (২২ ও ২৩), ঝালকাঠি (২৪), ভোলা (২৫ ও ২৬), মাগুরা (২৭) ও পটুয়াখালীর মুসল্লিরা ২৮নং খিত্তায় অবস্থান করেন।

প্রায় দুই দশক ধরে টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমায় আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করেছেন ভারতের প্রখ্যাত আলেম ও বিশ্ব তাবলিগ জামাতের আমির মাওলানা জোবায়েরুল হাসান। তিনি মারা যাওয়ার পর মোনাজাত পরিচালনা করেন ভারতের আরেক শীর্ষস্থানীয় তাবলিগ মুরব্বি মাওলানা সাদ কান্ধলভী। তবে মাওলানা সাদকে নিয়ে বিতর্ক ওঠার পর তিনি এবার টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নিচ্ছেন না।

শুক্রবার ভোরে আম বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছিল ৫৩তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব।

চার দিন বিরতি দিয়ে আগামী শুক্রবার শুরু হবে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব।