অপরাধীকে বীর বানানো গণমাধ্যমের কাজ নয়: তথ্যমন্ত্রী

0
37
ডেস্ক রিপোর্ট:
তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন,আদালতের রায়ে দণ্ডপ্রাপ্ত কারো প্রতি সহানুভূতি তৈরি করে তাকে ‘বীর’ বানানো গণমাধ্যমের কাজ নয়।
বুধবার বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল দিবস উপলক্ষে রাজধানীর তোপখানায় প্রতিষ্ঠানটির কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।
তিনি বলেন,বিচারের আগে গণমাধ্যমে কাউকে দোষী সাব্যস্ত করা বা মিডিয়া ট্রায়াল যেমন সঠিক নয়, তেমনি বিচারে দণ্ডপ্রাপ্ত অপরাধীদের প্রতি সহানুভূতি তৈরিও গণমাধ্যমের কাজ নয়।
তিনি বলেন, গণমাধ্যমকে অপরাধ ও অপরাধীদের বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকতে হবে, যাতে তাদের স্থান রাজনীতি ও ক্ষমতার বাইরে হয়।
১৯৭৪ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল গঠন করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। প্রতি বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি প্রেস কাউন্সিল দিবস হিসেবে পালন করবে সরকার।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর সামরিক-সাম্প্রদায়িক অপশক্তি দেশে যে বিচারহীনতা ও মুক্তিযোদ্ধা এবং রাজাকারকে এক পাল্লায় মাপার অপসংস্কৃতি গড়ে তুলেছিল, বর্তমান সরকার তা থেকে বেরিয়ে এসে যুদ্ধাপরাধী, বঙ্গবন্ধুর খুনি, জঙ্গি-সন্ত্রাসী ও দুর্নীতিবাজদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাচ্ছে।
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও তার ছেলে তারেক রহমানের সাজা তাদের কৃতকর্মেরই ফল বলেও মন্তব্য করেন জাসদ সভাপতি ইনু।
তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেন, প্রেস কাউন্সিল, চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশনসহ তথ্য, গণমাধ্যম এবং দেশের সকল উন্নয়নের পথনির্দেশক ছিলেন জাতির পিতা। আমরা তার অসমাপ্ত কাজকে এগিয়ে নিয়ে চলছি, গণমাধ্যমকে এ অগ্রযাত্রায় সঙ্গী হতে হবে।
প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি মোহাম্মদ মমতাজ উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে কাউন্সিলের সচিব শ্যামল চন্দ্র কর্মকার সভায় স্বাগত বক্তব্য দেন।
আগামী ১৮ ফেব্রুয়ারি ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে প্রেস কাউন্সিল দিবসের জাতীয় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে।